সোমবার, ২০শে মে, ২০২৪ খ্রিস্টাব্দ

শিরোনাম

শান্তিগঞ্জে অপহরণের ১ মাস পর ধানের গোলা থেকে কিশোর উদ্ধার, ৬ অপহরণকারী গ্রেফতার।

সুনামগঞ্জ জেলার জগন্নাথপুর সার্কেলের সহকারী পুলিশ সুপার সুভাশীষ ধর ও শান্তিগঞ্জ থানার অফিসার ইনচার্জ মোঃ খালেদ চৌধুরী-এর নেতৃত্বে এসআই কাজল চন্দ্র দেব, এসআই মোহন রায়, এএসআই রুবেল আহম্মেদ ও ফোর্সের সমন্বয়ে গঠিত টিমের দীর্ঘ ১মাসের তৎপরতায় অপহৃত কিশোর মোঃ ফাইজুর রহমান ওরফে ফারকুল (১৩)কে উদ্ধার করা হয়। অপহরণের ঘটনার সাথে জড়িত ৬ অপহরণকারীকে গ্রেফতার করে শান্তিগঞ্জ থানা পুলিশ। গতকাল রবিবার (২৪ সেপ্টেম্বর ২০২৩ খ্রি.) দিবাগত রাত ৩টায় ছাতক থানাধীন হরিশ্বরণ গ্রামে গ্রেফতারকৃত আসামিদের বসতবাড়িতে থাকা ধানের গোলা থেকে ভিকটিম ফারকুলকে শিকল দিয়ে বাঁধা অবস্থায় উদ্ধার করা হয়। অপহরণের ঘটনার সাথে জড়িত আসামি ১। আব্দুল্লাহ আল আমিন@জুনেদ (২৫), পিতা-মো: আব্দুল সালাম, ২। মো: জিয়াউর রহমান (২২), পিতা-মো:আব্দুল কাদির, ২। মো: আব্দুল সালাম (৫২), পিতা-মৃত-মদরিছ আলী, ৩। মোছা: খাদিজা বেগম (১৮), পিতা-মো: আব্দুল সালাম, সর্বসাং-হরিশ্বরণ, থানা-ছাতক, ৪। মো; বিলাল মিয়া (৪২), পিতা-মৃত তৈয়ব আলী, ৫। মোছা: বেগম (৪৮), স্বামী-মোঃ বিল্লাল মিয়া, উভয়সাং-কামারখাল, থানা-জগন্নাথপুর, বর্তমানে সাং-আসামপুর, থানা-শান্তিগঞ্জ, সর্ব জেলা-সুনামগঞ্জদের বিভিন্ন স্থানে অভিযান পরিচালনা করে গ্রেফতার করা হয়।

গত ২৫ আগস্ট ২০২৩ খ্রি. সকাল ১১টা থেকে সাড়ে ১১টার মধ্যে মোঃ ফাইজুর রহমান ফখরুল ওরফে ফাকরুল (১৩), পিতা-আব্দুর গফুর, সাং-হাসামপুর, থানা-শান্তিগঞ্জ, জেলা-সুনামগঞ্জ খেলার উদ্দেশ্যে বাড়ি থেকে বের হয়ে আর বাড়িতে ফিরে না আসায় তার পিতা শান্তিগঞ্জ থানায় গত ২৭ আগস্ট ২০২৩ খ্রি. একটি নিখোঁজ ডায়রি করেন। এরইমধ্যে অজ্ঞাতনামা অপহরণকারীরা নিখোঁজ ফারকুলকে নির্যাতনের ভিডিও ধারণ করে ফারকুলের আত্মীয়স্বজনের ইমুতে পাঠিয়ে ৩ লক্ষ টাকা মুক্তিপন দাবী করে। উক্ত ঘটনায় অজ্ঞাতনামা আসামিদের বিরুদ্ধে শান্তিগঞ্জ থানায় একটি অপহরণের মামলা রুজু করা হয়। উক্ত মামলা রুজুর পর থেকে মামলার তদন্তকারী অফিসার এসআই কাজল চন্দ্র দেবসহ অফিসার ও ফোর্সের সমন্বয়ে গঠিত একটি টিম ভিকটিকে উদ্ধার ও আসামি গ্রেফতারে বিভিন্ন স্থানে অভিযান পরিচালনাসহ তথ্য ও উপাত্ত সংগ্রহ অব্যাহত রাখে।গতকাল ২৪ সেপ্টেম্বর ২০২৩ খ্রি. অপহরণকারীদের দাবীকৃত মুক্তিপণের টাকা দেওয়ার কথা বলে অপহরণকারী দলের সাথে যোগাযোগ করা হয়। অপহরনকারীরা তাদের দাবিকৃত টাকা ছাতক থানাধীন একটি নির্জন হাওরের ভিতর কালভার্টে পার্শ্বে ধান ক্ষেতের আইলে রাখার জন্য বলে। তাহাদের কথামতো সন্ধ্যা ৬টার দিকে দাবিকৃত টাকা রেখে ধান ক্ষেতের চার পাশে অবস্থান নেয় ছদ্মবেশে থাকা পুলিশ সদস্যগণ। রাত সাড়ে ৮টার দিকে অপহরকারী দলের সদস্য আব্দুল্লাহ আল আমিন@জুনেদ টাকা নিতে আসলে ছদ্মবেশে থাকা পুলিশের টিম তাকে আটক করে। পরবর্তীতে তার দেওয়া তথ্যের ভিত্তিতে রাতভর শান্তিগঞ্জ, সিলেট ও ছাতকের একাধিক জায়গায় অভিযান পরিচালনা করে অপহরণের ঘটনার সাথে জড়িত আসামিদের গ্রেফতার করা হয় এবং অপহৃত কিশোর মোঃ ফাইজুর রহমান ওরফে ফারকুলকে উদ্ধার করা হয়।

সংশ্লিষ্ট সংবাদ