সোমবার, ২০শে মে, ২০২৪ খ্রিস্টাব্দ

শিরোনাম

জগন্নাথপুর পত্রিকা’র একান্ত সাক্ষাৎকারে হাজ্বী আনোয়ার মিয়া

সাক্ষাৎকার:

সুনামগঞ্জ জেলার জগন্নাথপুর উপজেলার ঐতিহ্যবাহী চিলাউড়া গ্রামের আশিঘর নয়া বাড়ী মরহুম হারীছ উল্লাহ (গান্ধী )সাহেব এর ছেলে হাজী আনোয়ার মিয়া তিনি যুক্তরাজ্যে বসবাস করে ও দেশের গরিব অসহায় মানুষদেরকে সাহায্য সহযোগিতা করার লক্ষ্যে প্রতিষ্ঠা করেন” আনোয়ার মিয়া ফাউন্ডেশন”অক্টোবর মাসের শুক্রবার রাতে “জগন্নাথপুর পত্রিকার” সম্পাদক মো, আলী হোসেন খান এর সাথে মোবাইল ফোনে আলাপ হয় আনোয়ার ফাউন্ডেশনের প্রতিষ্ঠাতার সঙ্গে এবং আনোয়ার মিয়া ফাউন্ডেশনের বিষয়ে উনার কাছে জানতে চাইলে আনোয়ার মিয়া ফাউন্ডেশনের প্রতিষ্ঠাতা মো.আনোয়ার মিয়া জগন্নাথপুর পত্রিকা, কে সকল প্রশ্নের জবাব দেন।

এসময় জগন্নাথপুর পত্রিকার সম্পাদক মো,আলী হোসেন খান প্রশ্ন করেন।

আপনার জন্মস্থান এবং বেড়ে উঠা কোথায় ?

উত্তরঃ আমার জন্ম এবং বেড়ে উঠা যুক্তরাজ্যে আমি বাংলাদেশে সবচেয়ে বেশি ফ্লাইয়ার হয়েছিলাম কারণ ১৯৮৪ সালে, আমার বাবা-মা আমাদের সংস্কৃতি ও ঐতিহ্য সম্পর্কে জানতে পাঁচ বছর সেখানে থাকার জন্য আমাদের বাংলাদেশে ফিরিয়ে নিয়ে যান।

 আপনি কখন ফাউন্ডেশন শুরু করেছেন?

উত্তরঃ আনোয়ার মিয়া ফাউন্ডেশনের সেটআপটি ২০১৪ সালে আমি বাংলাদেশ সফরে চিলাউড়া গ্রামে গিয়েছিলাম, এবং আমার উপস্থিতিতে ৩ জন দরিদ্র লোক চাল চাইছিলেন। এবং আমি তাদের সাথে কথা বলতে শুরু করলাম, এবং তারা তাদের কষ্টের ব্যাখ্যা দিলেন। এক বেলা ভাত জোগাড় করতেই সারাদিন কতটুকু কষ্টে কাটে তাদের। তারপর থেকেই আমি সিদ্ধান্ত নেই যে গরীব দুঃখিদের অসহায়ত্ব দুর করতে গ্রামে গ্রামে কিছু করব।

আপনি কেন এটা কর ?

উত্তরঃ আমার অর্থ সম্পদের হিসাব অনুযায়ী আমার অবশ্যই যাকাত দিতে হবে। যাকাত আমাকে এটা করতে বাধ্য করেছে। আমি ইসলামী শরীয়া আইনের একজন ছাত্র এবং আমি যাকাতের টাকা থেকে খাদ্য সামগ্রী বিতরন করি।

 আপনি আপনার ব্যবসার কত % যাকাতে দান করেছেন?

উত্তরঃ আমি ২০০০ সালে আমার ইউকে ব্যবসা শুরু করি এবং দরিদ্র লোকদের খাওয়ানোর জন্য 2.5% জাকাত দান করেছি। আল্লাহ যেনো আমার ব্যবসায় বরকত দান করেন।প্রতি মাসে বাংলাদেশের তিনটি শাখায় প্রায় ৫০০ টি পরিবারকে খাদ্য সামগ্রী দিয়ে তাকি।আল্লাহ যেনো আমাকে আরও বেশি লোককে সাহায্য করার তৌফিক দেন। এছাড়াও আমরা চিকিৎসা, শিক্ষা, আবাসন নির্মাণ, বিবাহের অনুষ্ঠান এবং দরিদ্র মানুষের জন্য জরুরি ত্রাণের জন্য আর্থিক সহায়তা প্রদান করি।

আনোয়ার ফাউন্ডেশন কি কোন আন্তর্জাতিক সাহায্য প্রকল্পে অংশ নেয়?

উত্তরঃ আনোয়ার ফাউন্ডেশন করোনা মহামারীর সময় অন্যান্য দেশের সাথে আন্তর্জাতিক সাহায্য প্রকল্পেও অংশ নেয়। এবং আমরা ভূমিকম্প ও বন্যায় প্লাবিত এর সময় আর্থিক সহায়তা প্রদান করেছি।

 ফাউন্ডেশন কি বাইরের আর্থিক সহায়তার উপর নির্ভর করে?

উত্তরঃ ফাউন্ডেশনটি স্বাধীন এবং ভবিষ্যতেও ২৫ বছর কোনো আর্থিক সহায়তা ছাড়াই এই ফাউন্ডেশনের আর্থিক সাহায্য চলমান তাকবে ইনশাআল্লাহ।আমার ব্যবসায় যাকাত দান সব সময় অব্যাহত থাকবে. ফাউন্ডেশনটি যুক্তরাজ্যে বাণিজ্যিক সম্পত্তি কেনার প্রক্রিয়ার মধ্যে রয়েছে যাতে এটি ফাউন্ডেশনের লক্ষ্যকে সমর্থন করার অনির্দিষ্টকালের জন্য নিজেকে টিকিয়ে রাখতে পারে।

বাংলাদেশে আপনার পরবর্তী সফর কবে?

উত্তরঃ আমি আমার কাজের ছুটিতে বাংলাদেশ দেখার অনেক চেষ্টা করেছি, কিন্তু গত দুই বছরেও পারিনি, আমার বাংলাদেশে আসা খুবই কম।কারণ আমার মাধ্যমে ৩০ জনেরও বেশি লোককে আমি পরিচালনা করতে হয়। ইনশাআল্লাহ আমি শীঘ্রই বাংলাদেশ সফর করব।

 বাংলাদেশের জন্য আপনার কোন আসন্ন প্রকল্প আছে কি?

উত্তরঃ বর্তমানে, আমি দরিদ্র লোকদের জন্য একটি প্রাইভেট ক্লিনিক স্থাপন করার পরিকল্পনা করছি যাতে করে জরুরি চিকিৎসার জন্য সুযোগ পেতে পারে। আমি এই স্বাস্থ্য কর্মসূচিকে সমর্থন করার জন্য আমার ব্যবসায়িক গ্রাহকের সাথে আলোচনা করার প্রক্রিয়ার মধ্যেও আছি। আমি বাংলাদেশে এমিরেট ফাউন্ডেশনের অন্যান্য সফল স্বাস্থ্য কার্যক্রম দেখেছি এবং তাদের সর্বোত্তম অনুশীলন গুলি অনুসরণ করেছি।

আনোয়ার ফাউন্ডেশনের কতটি শাখা আছে?

উত্তরঃ আনোয়ার ফাউন্ডেশনের বতর্মানে ৩ টি শাখা রয়েছে।

প্রথম শাখা: চিলাউড়া বাজার
দ্বিতীয় শাখা: বিশ্বনাথ কালীগঞ্জ
তৃতীয় শাখা: সিলেট বালুচর জোনাকি

প্রতিষ্ঠা আরোও বলেন:দোয়া করবেন আল্লাহ তাআলা যেনো আমাকে গরীব দুখিদের অসহাত্ব, হত দরিদ্র মানুষের দরিদ্রতা অভাবীদের অভাব, কিছু টা হলেও দুর করতে পারি সেই তৌফিক দান করেন।

সংশ্লিষ্ট সংবাদ