বৃহস্পতিবার, ১৮ই এপ্রিল, ২০২৪ খ্রিস্টাব্দ

শিরোনাম

যতো কান্নাকাটি করো কোন লাভ নেই,পরিকল্পনামন্ত্রী এমএ মান্নান

সরকারের পরিকল্পনামন্ত্রী এমএ মান্নান এমপি বলেছেন, শেখ হাসিনা আমাদের নেতা। বঙ্গবন্ধুর মতো তাঁর কন্যাও অত্যান্ত সাহসী মানুষ। বঙ্গবন্ধু আমাদের স্বাধীনতা দিয়েছেন। তাঁর কন্যা দেশের উন্নয়ন করছেন। দেশে পদ্ধাসেতু সহ দুঃসাহসিক উন্নয়ন দেখে অনেকের মাথা ঘুরে গেছে তাই আবুল-তাবুল বকছেন একদল মানুষ । তবে দেশের মানুষ এখন উন্নয়ন চায়। কোন সংঘাত চায় না। বর্তমানে দেশে কোন মানুষ না খেয়ে থাকে না।

নিরক্ষরতা দুর করতে শিক্ষার উন্নয়ন হয়েছে। পানির কষ্ট দুর করতে বড় বড় মেঘা প্রকল্প বাস্তবায়ন হয়েছে। ঘরে ঘরে বিদ্যুৎ পৌছে দেয়া হয়েছে। রাস্তাঘাট ও সেতুর উন্নয়ন হয়েছে। যা অতীতে কোন সরকারের আমলে হয়নি। তিনি বলেন, এ বাংলাদেশ সকলের। এ দেশে সকল ধর্মের মানুষ শান্তিতে বসবাস করছে। গ্রাম এখন শহরে পরিণত হয়েছে। তিনি বলেন, দেশে আরো উন্নয়ন চাইলে আগামী জাতীয় নির্বাচনে নৌকায় ভোট দিয়ে আ.লীগকে বিজয়ী করবেন।
মন্ত্রী বিএনপির উদ্দেশ্যে বলেন, তারা দেশে দেশে গিয়ে কান্নাকাটি করে বিচার চায়। এটা আমাদের দেশের বিচার আমরাই করবো। তবে আমেরিকার মতো বিচারি চাই না। তিনি বিএনপিকে বলেন, যতো কান্নাকাটি করো কোন লাভ নেই। নির্বাচন ছাড়া ক্ষমতায় যাওয়ার সুযোগ নেই। লন্ডনে থেকে মজা লুটা যাবে না। সাহস থাকলে দেশে এসে নির্বাচনে আসো, মানুষের কাছে গিয়ে ভোট চাও। দেখো মানুষ কি বলে। তিনি লাফালাফি করে কোন লাভ নেই। ২৮ অক্টোবর দেশে কিছুই হবে না। এ দেশটা আমাদের। সুতরাং আমাদেরকেই রক্ষা করতে হবে।
২৪ অক্টোবর মঙ্গলবার বিকেলে জগন্নাথপুর উপজেলার রাণীগঞ্জ বাজারে গ্রামীণ পাইপড ওয়াটার সাপ্লাই স্কীম উদ্বোধন উপলক্ষে জগন্নাথপুর উপজেলা জনস্বাস্থ্য প্রকৌশল অধিদপ্তর ও রাণীগঞ্জ ইউনিয়ন পরিষদের উদ্যোগে বর্ণাঢ্য ব্যতিক্রমী আলোচনাসভায় প্রধান অতিথির বক্তব্যে মন্ত্রী এসব কথা বলেন। পুরো বাজারজুড়ে অনুষ্ঠানের প্যান্ডেল ও আলোচনা মঞ্চে নারী-পুরুষ মিলে প্রায় ১০ হাজার মানুষের সমাগম হয়।
রাণীগঞ্জ ইউপি চেয়ারম্যান শেখ ছদরুল ইসলামের সভাপতিত্বে ও ইউপি সদস্য জাকির হোসেনের পরিচালনায় বিশেষ অতিথি ছিলেন সুনামগঞ্জ জেলা আ.লীগের উপদেষ্টা ও প্রবীণ রাজনীতিবিদ সিদ্দিক আহমদ। বিশেষ অতিথির বক্তব্য রাখেন, সুনামগঞ্জ নির্বাহী প্রকৌশলী (এলজিইডি) মাহবুব আলম, জগন্নাথপুর উপজেলা চেয়ারম্যান নুরুল ইসলাম, উপজেলা আ.লীগের সাধারণ সম্পাদক রেজাউল করিম রিজু, উপজেলা ভাইস চেয়ারম্যান আবুল হোসেন লালন। এতে স্বাগত বক্তব্য রাখেন, জগন্নাথপুর উপজেলা জনস্বাস্থ্য প্রকৌশলী মো.আবদুর রব সরকার।

 

বক্তব্য রাখেন, রাণীগঞ্জ ইউনিয়ন আ.লীগের সাবেক সভাপতি হাজী সুন্দর আলী, উপজেলা যুবলীগের সভাপতি কামাল উদ্দিন, সহ-সভাপতি সালেহ আহমদ, অধ্যক্ষ লুৎফুর রহমান, আ.লীগ নেতা আবদুল বাছির, আনোয়ার তালুকদার, ইউনিয়ন যুবলীগের আহবায়ক রাজিব তালুকদার, যুবলীগ নেতা দুলন মিয়া, ইউনিয়ন ছাত্রলীগের সভাপতি ফখরুল ইসলাম, সাধারণ সম্পাদক আবদুল হক, সহ-সভাপতি আবু তাহের, জগন্নাথ দাস প্রমূখ। অনুষ্ঠান শুরুতে শিক্ষার্থীদের নিয়ে জাতীয় সংগীত পরিবেশন করা হয়। এতে বঙ্গবন্ধু, শেখ হাসিনা ও এমএ মান্নানকে নিয়ে পৃথকভাবে সংগীত পরিবেশন ও কবিতা আবৃতি করা হয়েছে।
সভায় জগন্নাথপুর উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা মো.সাজেদুল ইসলাম, জগন্নাথপুর থানার অফিসার ইনচার্জ মিজানুর রহমান, উপজেলা আ.লীগের সাবেক যুগ্ম-সম্পাদক লুৎফুর রহমান, জগন্নাথপুর পৌরসভার প্যানেল মেয়র সাফরোজ ইসলাম মুন্না, আশারকান্দি ইউপি চেয়ারম্যান আইয়ূব খান, পাইলগাঁও ইউপি চেয়ারম্যান মখলিছ মিয়া, রাণীগঞ্জ ইউনিয়নের সাবেক চেয়ারম্যান মজলুল হক, উপজেলা আবাসিক প্রকৌশলী (বিদ্যুৎ) আজিজুর রহমান আজাদ, উপজেলা প্রকৌশলী (এলজিইডি) সোহরাব হোসেন, পৌর আ.লীগের সাধারণ সম্পাদক হাজী ইকবাল হোসেন ভূইয়া সহ দলীয় নেতাকর্মী, বিভিন্ন শ্রেণি-পেশার নেতৃবৃন্দ অংশ গ্রহণ করেন।

এ সময় বর্ণিল সাজে সজ্জিত অনুষ্ঠানে প্রায় ১০ হাজার নারী-পুরুষের উপস্থিতিতে লোকে লোকারণ্য হয়ে উঠে পুরো রাণীগঞ্জ বাজার সহ আশপাশ এলাকা। এর আগে আরো বিভিন্ন অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথির বক্তব্য রাখেন পরিকল্পনামন্ত্রী এমএ মান্নান।

জগন্নাথপুর পত্রিকা ডেস্ক :

সংশ্লিষ্ট সংবাদ