jagannathpurpotrika-latest news

আজ, , ১৮ই রমযান, ১৪৪০ হিজরী

সংবাদ শিরোনাম :
«» ১৮ জুন জামালগঞ্জ উপজেলা পরিষদ নির্বাচন «» ওসমানীনগরে তালামীযের ইফতার মাহফিল ও আলোচনা সভা অনুষ্ঠিত «» সামাজিক সংগঠন ইয়ূথ-স্টাফ সিলেটের ইফতার মাহফিল অনুষ্ঠিত «» বিশ্বনাথে দিনমজুর পরিবারের উপর হামলা, আহত ৩ «» বিশ্বনাথে আ’লীগের ইফতার মাহফিলে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা’র নেতৃত্বেই দেশ হয়েছে ক্ষুধা-দারিদ্র, জঙ্গি-সন্ত্রাসবাদ ও মাদকমুক্ত- শফিক চৌধুরী «» জগন্নাথপুরে তালামীযের অভিষেক ও ইফতার মাহফিল অনুষ্ঠিত «» ছাত্র মজলিস প্রচলিত কোন সংগঠনের নাম নয় বরং একটি আদর্শিক শিক্ষা প্রতিষ্ঠান- সাইফুর রহমান খোকন «» ইফতার মাহফিলে বিভিন্ন শ্রেণী-পেশার মানুষের মিলনমেলা : ঐতিহ্যবাহী বিশ্বনাথ প্রেসক্লাবের কর্মকান্ড সর্বমহলে প্রসংশিত- শফিকুর রহমান চৌধুরী «» নিরাপত্তা চেয়ে বিশ্বনাথের যুবকের আদালতে মামলা «» জ্যৈষ্ঠ মাসে নাইওরি আসে




গণভবন ও শোকরিয়া মাহফিলে আল্লামা বাবু নগরীকে কেন বাদ দেয়াহলো জাতী জানতে চায়

আবদুর রহমান জামী:

 

 

শেখ হাসিনার শোকরিয়া বা গণভবনে আলেমদের বৈঠক-কোথাও দেখা যায়নি হেফাজতে ইসলামের মহাসচিব শায়খুল হাদিস জুনায়েদ বাবুনগরীকে। সবখানে তার এই অনুপস্থিতি নিয়ে প্রশ্ন ও রহস্যের তৈরি হয়েছে। তবে, এসব বিষয়ে এখনও নিরব জুনায়েদ বাবুনগরী।

 

২০১৩ সালের ৫ মে শাপলাকাণ্ডের পর দীর্ঘসময় রিমান্ড ও কারাগোভ করেছেন হেফাজতের মহাসচিব আল্লামা জুনায়েদ বাবুনগরী। ওই বছরের ৬ মে রাজধানীর ঢাকেশ্বরী মন্দির এলাকা থেকে বাবুনগরীকে আটক করে ঢাকা মহানগর গোয়েন্দা পুলিশ। এরপর হেফজাতের বিরুদ্ধে করা ১৬টি মামলার মধ্যে তিনটিতে তাকে গ্রেফতার দেখানো হয়।

 

মতিঝিল থানার তিন মামলায় বাবুনগরীর ২২দিনের রিমান্ড মঞ্জুর করেন আদালত। রিমান্ডে থেকে গুরুতর অসুস্থ হয়ে পড়লে তাকে শঙ্কটাপন্ন অবস্থায় বারডেম হাসপাতালে ভর্তি করা হয়। মুমূর্ষু অবস্থায় ২৯ মে তার জামিন মঞ্জুর করে হাসপাতাল থেকেই তড়িগড়ি মুক্তি দেওয়া হয়।

 

 

হেফাজত তখন বিবৃতি দিয়ে সরকারি উদ্যোগে বিদেশে বাবুনগরীর চিকিৎসার দাবি করলেও সেটি বাস্তবায়ন হয়নি। বাবুনগরীর পাসপোর্ট জব্দ থাকায় ব্যক্তিগত উদ্যোগেও তাকে বিদেশে নেওয়া যায়নি। এখনও পর্যন্ত তাঁর পাসপোর্ট জব্দ রয়েছে।

 

গণভবন ও শোকরিয়া মাহফিলে হেফাজতে ইসলামের মহাসচিব মজলুম কারানির্যাতিত শায়খুল হাদিস আল্লামা জুনায়েদ বাবুনগরীর পাসপোর্ট ফিরিয়ে দেওয়ার ব্যাপারে উপস্থিত একজন বক্তাও মুখ খুলেননি!

 

হেফাজতে ইসলামের সকল অান্দোলনে মাঠে- ময়দানে বিভিন্ন বাহিনীর সামনে মাথা উঁছু করে এক পায়ে দাড়ি সুন্নতি লাঠি নি বজ্রকন্ঠ বক্তব্যে হেফাজতের সকল সফলতা এসেছে। তাকে মায়নাস করার কারনে দেশ-বিদেশে নানান প্রশ্ন তৈরি হয়েছে।

 

গণভবন ও শোকরিয়া মাহফিলে মজলুম কারানির্যাতিত শায়খুল হাদিস আল্লামা জুনায়েদ বাবুনগরীকে কেন বাদ দেয়াহলো জাতী তা জানতে চায়।

 

শাপলার ঘটনার পর হেফাজতের সঙ্গে সরকারের সম্পর্কের উন্নয়ন হতে থাকে। ২০১৭ সালের ১১ মে গণভবনে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার নিমন্ত্রণ পায় হেফাজত। আল্লামা আহমদ শফির নেতৃত্বে প্রায় তিনশ আলেম সেই নিমন্ত্রণে শরিক হন। কিন্তু সেখানে ছিলেন না হেফাজতের মহাসচিব আল্লামা জুনায়েদ বাবুনগরী।গত ২২ অক্টোবর গণভবনে প্রধানমন্ত্রীর সঙ্গে ১২ জন আলেম নিয়ে আরেকটি বৈঠক করেন আল্লামা শফি।সেখানে অনুপস্থিত বাবুনগরী। সর্বশেষ প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনাকে সংবর্ধনা জানাতে শুকরানা মাহফিলে দেখা মিলেনি তাঁর।

 

কওমি মাদ্রাসা শিক্ষার সর্বোচ্চ স্তর দাওরায়ে হাদিসকে স্নাতকোত্তরের (মাস্টার্স সমমান) স্বীকৃতি দিয়ে আইন পাস করায় রাজধানীর সোহরাওয়ার্দী উদ্যানে কওমি মাদ্রাসার ছয় বোর্ডের সমন্বিত সংস্থা ‘আল হাইয়াতুল উলইয়া লিল জামিয়াতিল কওমিয়া’ শুকরানা মাহফিলের আয়োজন করা হয়। সংস্থার সবচেয়ে বৃহৎ বোর্ড বেফাকুল মাদারিসিল অারাবিয়ারও সহসভাপতি আল্লামা জুনায়েদ বাবুনগরী।

 

রোববার (৪ নভেম্বর) আলেম-ওলামারা যখন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনাকে শোকরিয়ায় উদ্ভাসিত করছিলেন,তখন জুনায়েদ বাবুনগরী নিরবে ছুটি কাটাচ্ছিলেন পরিবারের সঙ্গে।

 

শুকরানা মাহফিল উপলক্ষে আল-জামিয়াতুল আহলিয়া দারুল উলুম মুঈনুল ইসলাম হাটহাজারী মাদরাসা বন্ধ হয়ে যাওয়ায় এর সহকারী পরিচালক ও শায়খুল হাদিস জুনায়েদ বাবুনগরী ছুটিতে তাঁর গ্রামের বাড়ি চট্টগ্রামের ফটিকছড়ি উপজেলার দৌলতপুর ইউনিয়নের বাবুনগর গ্রামে চলে যান।
শারীরিক অসুস্থতার’কারণে আল্লামা জুনায়েদ বাবুনগরী শুকরানা মাহফিলে শরিক হতে পারেনি।
এমনটাই গণমাধ্যমকে বলেছেন বাবুনগরী।

 

তবে কারাগার থেকে মুক্তির পর অসুস্থ শরীর নিয়েও বাবুনগরী যেখানে সারা দেশে বিভিন্ন মাহফিলে অংশ নিচ্ছেন, সেখানে কওমির ‘ভাগ্য নির্ধারণী’নেই বাবু নগরী।

 

লেখক: সুনামগঞ্জ, মোবাঃ 01712531125

এখানে ক্লিক করে শেয়ার করুণ