jagannathpurpotrika-latest news

আজ, , ১৮ই রমযান, ১৪৪০ হিজরী

সংবাদ শিরোনাম :
«» ১৮ জুন জামালগঞ্জ উপজেলা পরিষদ নির্বাচন «» ওসমানীনগরে তালামীযের ইফতার মাহফিল ও আলোচনা সভা অনুষ্ঠিত «» সামাজিক সংগঠন ইয়ূথ-স্টাফ সিলেটের ইফতার মাহফিল অনুষ্ঠিত «» বিশ্বনাথে দিনমজুর পরিবারের উপর হামলা, আহত ৩ «» বিশ্বনাথে আ’লীগের ইফতার মাহফিলে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা’র নেতৃত্বেই দেশ হয়েছে ক্ষুধা-দারিদ্র, জঙ্গি-সন্ত্রাসবাদ ও মাদকমুক্ত- শফিক চৌধুরী «» জগন্নাথপুরে তালামীযের অভিষেক ও ইফতার মাহফিল অনুষ্ঠিত «» ছাত্র মজলিস প্রচলিত কোন সংগঠনের নাম নয় বরং একটি আদর্শিক শিক্ষা প্রতিষ্ঠান- সাইফুর রহমান খোকন «» ইফতার মাহফিলে বিভিন্ন শ্রেণী-পেশার মানুষের মিলনমেলা : ঐতিহ্যবাহী বিশ্বনাথ প্রেসক্লাবের কর্মকান্ড সর্বমহলে প্রসংশিত- শফিকুর রহমান চৌধুরী «» নিরাপত্তা চেয়ে বিশ্বনাথের যুবকের আদালতে মামলা «» জ্যৈষ্ঠ মাসে নাইওরি আসে




একাল-সেকালের ওয়াজ

মাওলানা উমর ফারুক শাবুল ::

 

ছোট বেলা দল বেধে মাইলের পর মাইল পারি দিয়ে পার্শবর্তী এলাকা গুলোতে তাফসির ও ওয়াজ শুনতে যেতাম। আমাদের এলাকা ও পার্শবর্তী এলাকা গুলো যে সমস্ত ওলী ও বুজুর্গ দের পদদুলিতে ধন্য হয়েছে। তাদের ওমর কর্ম আজও হৃদয়ের গহিনে নাড়া দেয়। বিশেষ করে শায়খে বরুনী, শায়খে কাতিয়া, শায়খে গুনই, শায়খে কাঠখালী, শায়খে পুরান গাওয়ী মাওলানা আব্দুল মুমিন সাব, শায়খে ধুলিয়া মাওলানা আ: রহমান সাব, শায়খে দীঘলবাগী মাওলানা শাহ আ: রহমান সাব, মাওলানা গোলাম কদ্দুছ সাব, হাফেজ ফুল মিয়া সাব, মাওলানা আব্দুল বাছিত আজাদ (বড় হুজুর), সিরাজ নগরী হুজুর, ফুলতুলির হুজুর, মাওলানা আ: কদ্দুছ নুরীসহ নাম না জানা আরো বহু বুজুর্গ আমাদের এলাকায় আসতেন। ওয়াজ ও তাফসির করতেন।তাদের ওয়াজ ও তাফসির শুনার জন্য আছরের নামাজ পড়েই শীতের কাপড়-চোপড় নিয়ে মুরুব্বী দের সাথে দল বেধে মাহফিলের মধ্যে রওয়ানা দিতাম। সন্ধ্যার দিকে মাহফিলে গিয়ে পৌছতাম। পড়ন্ত বিকেল থেকে শুরু হয়ে মধ্যে রাতে কিছু সময় ঘুমের বিরতির পর ফজরের আজানের আগেই মাহফিলের প্রধান মেহমান যিনি তিনি মাইকে জিকির করতেন আর ফজরের জামাতে শরিক হওয়ার জন্য সবাইকে ডাকতেন। ঘরের মহিলারা পুরুষদদের জাগ্রত করে নামাজে পাঠাতেন।নামাজ ও আখেরী মোনাজাতের জন্য দলবেধে ঘুমের আরামের চাদর ফেলে মাহফিলে শরিক হতেন মুসল্লিয়ান। মহিলারাও ঘরে নামাজ পড়তেন। নামাজের পর আখেরী মোনাজাত করে মাহফিল শেষ হতো। শ্রোতারা মনোমোগ্ধতার সাথে ওয়াজ শুনতেন।আমল করতেন। হুজুরদের ওয়াজে শ্রোতাদের মধ্যে খুব আচর পড়তো। ওয়াজে লম্বা সুর নেই, হাসি নেই, কৌতুক নেই, কাউকে ব্যঙ্গাত্ব করে কোন কথা নেই, টাকা-পয়সার চুক্তি নেই।অহংকারমুলক কোন কথা নেই। একই রাতে ৩/৪ টি প্রোগ্রাম রাখতেন না।পরিচালনা কমিটির সাথে হাদিয়া নিয়ে কোন মনোমালিন্য নেই। শুধু কোরআন-হাদিসের কথা, সাহাবায়ে কেরামের কথা, ওলী, আওলিয়া, গৌছ-কুতুকদের বাস্তব কাহিনী, শরীয়ত, মারিফত, হাকিকত, ঈমান-এক্বিন, কালেমা, নামাজ, রোজা, হজ্জ, পর্দা, হালাল- হারাম এর উপর বাস্তব আলোচনা করতেন। সুদ, ঘুষ, টিভি, ভিডিও, বেপর্দা, অশ্লীলতার বিরোদ্ধে কঠোর ভাবে বয়ান করতেন। পরবর্তীতে মাহফিলের দাওয়াত পাওয়া যাবে কিনা সেদিকে তাদের কোন চিন্তা ফিকিরই ছিল না। কাউকে ভয় করে কোন কথাও বলতেন না। যা বলতেন এখলাছের নিয়তে সৎ সাহস নিয়েই বলতেন। বড় বড় লিডার পার্সন স্টেইজে থাকলে তাদেরকে নামাজ পড়তে, দাড়ি রাখতে ইসলামী বিধি-বিধান মানতে বাধ্য করতেন। তারাও হুজুরদের বয়ানে মুগ্ধ হয়ে আমল-আখলাকে খাটি মানুষে পরিণত হইতেন। দোয়া করি যে সমস্ত বুজুর্গ গন আজো বাংলাদেশসহ বিশ্বের বিভিন্ন প্রান্তরে ওয়াজ ও তাফসির করে দ্বীনি খেদমত আন্জাম দিচ্ছেন আল্লাহ যেন তাদেরকে হায়াতে তাইয়েবা ও দীর্ঘায়ু দান করেন এবং যে সমস্ত বুজুর্গ ইন্তেকাল করেছেন তাদেরকে যেন জান্নাতের সু-উচ্চ মাকাম দান করেন।

 

উল্লেখযোগ্য তাফসির গ্রন্থ সমূহ: তাফসীরে ইবনে আব্বাস, আব্দুল্লাহ ইবন আব্বাস (রাঃ) তাফসীরে ইবনে কাসীর, ইসমাঈল ইবনে কাসীর (রহঃ) তাফসীরে কাশশাফ, আবু আল কাসিম মাহমুদ ইবনে উমার আল যামাখশারী (রহঃ) তাফসীরে দুররে মানসুর, ইমাম জালালুদ্দিন আস সুয়ূতী (রহঃ) তাফসীরে জালালাঈন, ইমাম জালালুদ্দিন আস সুয়ূতী (রহঃ) তাফসীরে ইবনে জারীর / তাফসীরে ত্ববারী / তাফসীরে জামিউল বয়ান, আবু জাফর মুহাম্মদ ইবনে জারীর আত্-তবারী (রহঃ) তাফসীরে খাজিন, আল্লামা আলাউদ্দীন আলী ইবনে মুহাম্মদ (রহঃ) কানযুল ঈমান ওয়া খাযাইনুল ইরফান,
আহমদ রেযা খান বেরলভী (রহঃ) তাফসীরে মাদারিক / তাফসীরে নাসাফী, ইমাম আব্দুল্লাহ বিন আহমদ বিন মাহমুদ আল নাসাফী (রহঃ) তাফসীরে বায়জাভী তাফসীরে কবীর / মাফাতিহুল গাইব, আল্লামা ফখরুদ্দীন রাযী (রহঃ) তাফসীরে রুহুল মা’আনী, আল্লামা শিহাবুদ্দীন আলুসী (রহঃ) তাফসীরে রুহুল বয়ান, আল্লামা ইসমাঈল হাক্কী (রহঃ) তাফসীরে নূরুল কোরআন, মুহম্মদ আমীনুল ইসলাম (রহঃ) তাফসীরে মা’আরেফুল কোরআন, মাওলানা মুফতি মুহাম্মদ শফী (রহঃ) ইত্যাদি। আসুন, আমরা সহিহ নিয়তে ওয়াজ করি ও শুনি। আল্লাহ আমাদের সবাইকে আমল করার তাওফিক দান করুন।

 

লেখক: মোবা: 01727241310

এখানে ক্লিক করে শেয়ার করুণ