jagannathpurpotrika-latest news

আজ, , ১৭ই শাওয়াল, ১৪৪০ হিজরী

সংবাদ শিরোনাম :
«» দক্ষিণ সুনামগঞ্জের পাগলায় দু’পক্ষের সংঘর্ষে স্কুল ছাত্র নিহত, আহত ১৫ «» জগন্নাথপুরে অগ্নিকান্ডে ৩ লক্ষাধিক টাকার ক্ষতি «» জগন্নাথপুর থানার এসআই আতিকুল আলমকে সুনামগঞ্জের পুলিশ সুপার সম্মাননা স্মারক ও সনদপত্র প্রদান «» জগন্নাথপুর থানার এসআই অনুজ কুমার দাশকে সুনামগঞ্জ জেলার শ্রেষ্ঠ এসআই হিসাবে সম্মাননা স্মারক ও সনদপত্র প্রদান «» সুনামগঞ্জে জামেয়া অষ্টগ্রাম শাখাইতির মুমতাজপ্রাপ্ত শিক্ষার্থীদের মাঝে পুরস্কার বিতরণ «» জগন্নাথপুর থানার ওসি ইখতিয়ার উদ্দিন চৌধুরী জেলার শ্রেষ্ঠ অফিসার ইনচার্জের সম্মাননা স্মারক ও সনদপত্র পেয়েছেন «» জগন্নাথপুরে পুলিশের অভিযানে ৬ জুয়াড়ি গ্রেফতার «» ৩০ লাখ শহীদকে চিহ্নিত করার পরিকল্পনা নেয়া হচ্ছে: সংসদে প্রধানমন্ত্রী «» নবীগঞ্জে কৃষকের তালিকায় জনপ্রতিনিধি, রাজনীতিবিদ ও প্রবাসিরা «» লক্ষ্য অর্জনে ছাত্রদের কঠোর পরিশ্রম করতে হবে দারুল ফালাহ’র সবক প্রদান অনুষ্ঠানে- আল্লামা মুহিব্বুল হক গাছবাড়ী




বিশ্বনাথে পুলিশের হাত থেকে আসামী ছিনতাই, কুখ্যাত সুহেল বাহিনীর হামলায় এসআই’সহ আহত ২

মো. আবুল কাশেম, বিশ্বনাথ প্রতিনিধি :: সিলেটের বিশ্বনাথের কুখ্যাত মাদক ব্যবসায়ী সুহেল মিয়া (৩২)’কে গ্রেফতার করতে গিয়ে তার বাহিনীর হামলায় আহত হয়েছেন থানা পুলিশের এসআই সবুজ কুমার নাইডু ও কনস্টেবল সুমন মালাকার। বৃহস্পতিবার (১০ জানুয়ারী) রাত ৮টায় উপজেলার বৈরাগী বাজারে এ ঘটনাটি ঘটে। এসময় অভিযানে অংশগ্রহন কারী পুলিশ সদস্যরা অবরুদ্ধ হয়ে পড়লে থানা থেকে পুলিশ সদস্যরা গিয়ে তাদের উদ্ধার করেন। জানা গেছে, বিশ্বনাথ উপজেলার রামপাশা ইউনিয়নের নওধার পূর্বপাড়া (বিন্দাটেক) গ্রামের মৃত আহমদ আলী উরফে শাবাল শাহ বাড়িতে ওরুসের নামে অসামাজিক কর্মকান্ড চালিয়ে আসছিলেন শাবাল শাহ’র পুত্র আশিক নূর এবং একই গ্রামের করিম বক্সের পুত্র সুহেল আহমদ, সুরুজ আলী ও কামরুল ইসলাম। এসব অসামাজিক কর্মকান্ডে প্রতিবাদ করায় অভিযুক্তরা আহমদ আলী উরফে শাবাল শাহর মেয়ে কলেজছাত্রী তাসলিমা বেগম (১৮) কে ২০১৮ সালের ১৯ জুলাই মারধার করে বাড়ি থেকে তাড়িয়ে দেয় এবং তাসলিমার ঘরে থাকা স্বর্ণালংকার ও নগদ টাকা সহ আসবাবপত্র লুট করে নেয়। এঘটনায় গত বছরে ৪ সেপ্টেম্বর ৫জনকে অভিযুক্ত করে বিশ্বনাথ থানায় একটি লিখিত অভিযোগ দায়ের করেন তাসলিমা বেগম। অভিযোগটি দীর্ঘদিন তদন্তের পর আজ বৃহস্পতিবার সকালে থানায় মামলা রেকর্ড করা হয়। এরপর রাত ৮টায় বিশ্বনাথ থানার এসআই সবুজ কুমার নাইডুর নেতৃত্বে একদল পুলিশ বৈরাগী বাজার থেকে অভিযুক্ত সুহেল মিয়াকে আটক করে হাতকড়া লাগাতে চাইলে সুহেলের সহযোগী সুরুজ মিয়া, আলি নুর, লিলু মিয়া ও মানিক মিয়ার নেতৃত্বে তার বাহিনীর লোকজন পুলিশের উপর হামলা চালায়। একপর্যায়ে হামলাকারীরা মারধর করে এসআই এসআই সবুজ কুমার নাইডু ও কনস্টেবল সুমন মালাকারকে আহত করে এবং তাদের হাত থেকে আসামী সুহেল মিয়াকে ছিনিয়ে নিয়ে যায়। এসময় অভিযানে অংশগ্রহনকারী পুলিশ সদস্যরা অবরুদ্ধ হয়ে পড়লে অতিরিক্ত পুলিশ সুপার (ওসমানীনগর সার্কেল) সাইফুল ইসলাম ও বিশ্বনাথ থানার ওসি শামসুদ্দোহা পিপিএম ঘটনাস্থলে গিয়ে পুলিশ সদস্যদের উদ্ধার করেন। আহত পুলিশ সদস্যদেরকে প্রাথমিক চিকিৎসা দেওয়া হয়েছে বলে জানা গেছে।
ঘটনার পর বিপুল সংখ্যক পুলিশ বৈরাগীবাজার ও নওধার গ্রামে অভিযান চালালেও বৃহস্পতিবার রাত সাড়ে ১১টায় এ রিপোর্ট লেখা পর্যন্ত কাউকে গ্রেফতার করতে পারেনি পুলিশ। হামলার ঘটনার সত্যতা স্বীকার করে বিশ্বনাথ থানার অফিসার ইন-চার্জ মোহাম্মদ শামসুদ্দোহা পিপিএম বলেন, কুখ্যাত অপরাধী সুহেল ও তার তার বাহিনীকে গ্রেফতারে অভিযান অব্যাহত রয়েছে।

এখানে ক্লিক করে শেয়ার করুণ