jagannathpurpotrika-latest news

আজ, , ১৭ই জিলক্বদ, ১৪৪০ হিজরী

সংবাদ শিরোনাম :
«» বিশ্বনাথে জুয়ার আস্তানায় পুলিশের অভিযান, আটক ১ «» হবিগঞ্জে ব্যবসা প্রতিষ্ঠানে হামলা, অর্থ লুট «» সিলেটে ইয়াবার চালানসহ অাটক ৩ «» বিশ্বনাথে সাজাপ্রাপ্ত আসামী গ্রেপ্তার «» দেশবাসী শুনে রাখেন মিন্নির কিছু হলে আমি আত্মহত্যা করমু «» সুনামগঞ্জে আইনজীবীর বাসায় দুর্ধর্ষ চুরি «» আল্লামা শায়খ যিয়া উদ্দিনের বর্ণাঢ্য জীবন ও কর্ম নিয়ে লিখিত জীবনী স্মারকের মোড়ক উন্মোচন ৮ আগস্ট «» রাজনৈতিক সংকট এখন রাজনৈতিক শূন্যতায় পরিনত হয়েছে- মাওলানা ইসহাক «» বিশ্বনাথে এইচএসসিতে দুই বোনের জিপিএ-৫ লাভ «» দক্ষিণ সুনামগঞ্জে শতাধিক পরিবারে আল হান্নান ইসলামী সমাজ কল্যাণ সংস্থার ত্রাণ বিতরন




মুঠোফোনে ‘নারীর’ কল, প্রেমিককে খুন করে লাশ পুঁতে রাখেন প্রেমিকা!

ডেস্ক রিপোর্ট :: মুঠোফোনে অন্য নারীর কল আসার জের ধরে প্রথমে কথা কাটাকাটি হয়। পরে পাথর দিয়ে কলেজছাত্র উজ্জ্বলের মাথা ফাটান প্রেমিকা ফারজানা।

পরে হাতের রগ কেটে মৃত্যু নিশ্চিত করেন উজ্জ্বলের। ঘটনাটি হবিগঞ্জের লাখাইয়ে ঘটেছে। এ ঘটনায় পুলিশ প্রেমিকা ফারজানা (১৭) ও তার বাবা মঞ্জু মিয়া (৫০)কে আটক করেছে।

সোমবার (২২ এপ্রিল) সন্ধ্যায় সাংবাদিক সম্মেলনের মাধ্যমে বিষয়টি জানান হবিগঞ্জের অতিরিক্ত পুলিশ সুপার (অ্যাডিশনাল এসপি) রবিউল ইসলাম।

এর আগে সোমবার বিকেল মেদি বিল থেকে উজ্জ্বলের গলিত মরদেহ উদ্ধার করে পুলিশ।

নিহত উজ্জ্বল লাখাই উপজেলার মুড়িয়াউক গ্রামের শাহ্ আলমের ছেলে ও মাধবপুর সৈয়দ সঈদ উদ্দিন ডিগ্রি কলেজের দ্বাদশ শ্রেণির ছাত্র।

পুলিশ জানায়, গ্রেফতারের পর উজ্জ্বলকে হত্যার বিষয়টি জিজ্ঞাসাবাদে স্বীকার করে ফারজানা।

ফারজানার স্বীকারোক্তির বরাত দিয়ে অতিরিক্ত পুলিশ সুপার (অ্যাডিশনাল এসপি) রবিউল ইসলাম জানান, বৃন্দাবন সরকারি কলেজের ছাত্রী ফারজানার সথে ফেসবুকে পরিচয় হয় উজ্জ্বল মিয়ার। সেই সুবাধে তারা দুজনে বিভিন্ন সময় দেখা করে। গত ২০ ফেব্রুয়ারি রাতে ফারজানার বাড়িতে যান উজ্জ্বল। সেখানে তাদের আলাপ চলাকালে উজ্জ্বলের মোবাইল ফোনে অপর এক নারী কল আসে।

এতে ফারজানা ক্ষিপ্ত হন। এনিয়ে কথা কাটাকাটির একপর্যায়ে ফারাজানা পাথর দিয়ে উজ্জ্বলের মাথায় আঘাত করে। পরে হাতের রগ কেটে মৃত্যু নিশ্চিত করে। পরে ঘরের ভেতরে গর্ত খুঁড়ে মরদেহটি মাটিচাপা দেয় ফারজানা। ঘটনার ১০/১২ দিন পর ফারজানা ও তার বাবা মঞ্জু মিয়া উজ্জ্বলের মরদেহটি নিয়ে মেদি বিলে ফেলে দেন।

এ ঘটনায় গত ২৬ ফেব্রুয়ারি উজ্জ্বল নিখোঁজ হয়েছে মর্মে তার পরিবারের পক্ষ থেকে লাখাই থানায় একটি সাধারণ ডায়েরি (জিডি) করা হয়। সাধারণ ডায়রির ভিত্তিতে পুলিশ বিষয়টি তদন্ত করে সন্ধেহজনকভঅবে গত ২১ এপ্রিল রাতে ফারজানা ও পিতা মঞ্জু মিয়াকে আটক করে পুলিশ। পরে তাদের স্বীকারোক্তিতে মরদেহটি উদ্ধার করা হয়।

এখানে ক্লিক করে শেয়ার করুণ