jagannathpurpotrika-latest news

আজ, , ১৪ই রমযান, ১৪৪০ হিজরী

সংবাদ শিরোনাম :
«» তাক্বওয়া অর্জনের মাধ্যমে রামাদ্বানের সুফল পাওয়া যায়- মাওঃ আহমদ হাসান চৌধুরী «» কাজের মাধ্যমে জনগনের সাথে আমার সু-সম্পর্ক গড়ে উঠবে : মোকাব্বির খান এমপি «» মা’হাদ সিলেট ক্যাম্পাসের ইফতার মাহফিল সম্পন্ন «» রোজার আনন্দ ইফতার «» রমজানের শিক্ষায় অনুপ্রাণিত হয়ে তাকওয়াভিত্তিক জীবন গঠন করতে হবে- মাওঃ রেজাউল করিম জালালী «» অনিয়মের অভিযোগ পেয়ে বিশ্বনাথ-রশিদপুর প্রশস্থকরণ কাজ পরিদর্শনে নুনু মিয়া «» গোয়াইনঘাটে গলায় ফাঁস লাগিয়ে তরুণীর আত্মহত্যা «» সৈয়দপুর যুবকল্যাণ পরিষদের উদ্যােগে ইফতার মাহফিল অনুষ্ঠিত «» জননেত্রী থেকে রাষ্ট্রনায়ক শেখ হাসিনা «» জগন্নাথপুরে বিএনপির এম এ সাত্তার গ্রুপের ইফতার মাহফিল ও অালোচনা সভা অনুষ্ঠিত




রমজানের ৩০ দিনের ৩০টি ফজিলত

১ম রমজানে = রোজাদারকে নবজাতকের মত নিষ্পাপ করে দেওয়া হয়। ২য় রমজানে = রোজাদারের মা -বাবাকে মাফ করে দেওয়া হয়। ৩য় রমজানে = একজন ফেরেশতা আবারও রোজাদারের ক্ষমার ঘোষনা দেয়। ৪র্থ রমজানে = রোজাদারকে আসমানী বড় বড় চার কিতাবের বর্ণ সমান সাওয়াব প্রদান করা হয়। ৫ম রমজানে= মক্কা নগরীর মসজিদে হারামে নামাজ আদায়ের সাওয়াব দেওয়া হয়। ৬ষ্ঠ রমজানে= ফেরেশতাদের সাথে ৭ম আকাশে অবস্থিত বাইতুল মামূর তাওয়াফের সাওয়াব প্রদান করা হয়। ৭ম রমজানে= ফিরাউনের বিরুদ্ধে মুসা আঃ এর পক্ষে সহযোগিতা করার সমান সাওয়াব প্রদান করা হয়। ৮ম রমজানে =রোজাদারের উপর হযরত ইবরাহীম আঃ এর মতো রহমত- বর্ষিত হয়। ৯ম রমজানে= নবী-রাসূলদের সাথে দাড়িয়ে ইবাদতের সমান সওয়াব দেওয়া হয়।১০ম রমজানে= রোজাদারকে উভয় জাহানের কল্যাণ দান করা হয়। ১১তম রমজানে=রোজাদারের মৃত্যু নবজাতকের ন্যায় নিষ্পাপ নিশ্চিত হয়। ১২তম রমজানে= হাশরের ময়দানে রোজাদারের চেহারা পূর্ণিমা চাদের মতো উজ্জল করা হবে। ১৩তম রমজানে=হাশরের ময়দানের সকল বিপদ থেকে নিরাপদ করা হবে।
১৪তম রমজানে= হাশরের ময়দানে হিসাব- নিকাশ সহজ করা হবে। ১৫তম রমজানে = সমস্ত ফিরিস্তারা রোজাদারের জন্য দোয়া করে। ১৬তম রমজানে= আল্লাহপাক রোজাদারকে জাহান্নাম থেকে মুক্তি এবং জান্নাতে প্রবেশের অনুমতি প্রদান করেন। ১৭তম রমজানে= একদিনের জন্য নবীগনের সমান সাওয়াব দেওয়া হবে। ১৮তম রমজানে = রোজাদার এবং তার মা-বাবার প্রতি আল্লাহর সন্তুষ্টির সংবাদ দেওয়া হয়। ১৯তম রমজানে= পৃথিবীর সকল পাথর-কংকর টিলা- টংকর রোজাদারের জন্য দোয়া করতে থাকে। ২০তম রমজানে =আল্লাহরপথে জীবন দানকারী শহীদের সমান সাওয়াব প্রদান করা হয়। ২১তম রমজানে = রোজাদারের জন্য জান্নাতে একটি উজ্জল প্রাসাদ নির্মান করা হয়। ২২তম রমজানে= হাশরের ময়দানের সকল চিন্তা থেকে মুক্ত করা হয়। ২৩তম রমজানে= জান্নাতে রোজাদারের জন্য একটি শহর নির্মান করা হয়। ২৪তম রমজানে = রোজাদারের যে কোন 24টি দোয়া কবুল করা হয়। ২৫তম রমজানে= কবরের শাস্তি চিরতরে বন্ধ করে দেওয়া হয়। ২৬তম রমজানে =৪০ বছর ইবাদতের সমান সওয়াব প্রদান করা হয়। ২৭তম রমজানে= চোখের পলকে পুলসিরাত পার করে দেওয়া হয়। ২৮তম রমজানে= জান্নাতের নেয়ামত দ্বিগুন করা হয়। ২৯তম রমজানে= এক হাজার কবুল হজ্জের সাওয়াব প্রদান করা হয়। ৩০তম রমজানে= পুরা রমজানের ফজিলত দ্বিগুন। পড়া শেষ হলে শেয়ার করে অন্যকে পড়ার সুযোগ দেন।

এখানে ক্লিক করে শেয়ার করুণ