jagannathpurpotrika-latest news

আজ, , ১৪ই রমযান, ১৪৪০ হিজরী

সংবাদ শিরোনাম :
«» তাক্বওয়া অর্জনের মাধ্যমে রামাদ্বানের সুফল পাওয়া যায়- মাওঃ আহমদ হাসান চৌধুরী «» কাজের মাধ্যমে জনগনের সাথে আমার সু-সম্পর্ক গড়ে উঠবে : মোকাব্বির খান এমপি «» মা’হাদ সিলেট ক্যাম্পাসের ইফতার মাহফিল সম্পন্ন «» রোজার আনন্দ ইফতার «» রমজানের শিক্ষায় অনুপ্রাণিত হয়ে তাকওয়াভিত্তিক জীবন গঠন করতে হবে- মাওঃ রেজাউল করিম জালালী «» অনিয়মের অভিযোগ পেয়ে বিশ্বনাথ-রশিদপুর প্রশস্থকরণ কাজ পরিদর্শনে নুনু মিয়া «» গোয়াইনঘাটে গলায় ফাঁস লাগিয়ে তরুণীর আত্মহত্যা «» সৈয়দপুর যুবকল্যাণ পরিষদের উদ্যােগে ইফতার মাহফিল অনুষ্ঠিত «» জননেত্রী থেকে রাষ্ট্রনায়ক শেখ হাসিনা «» জগন্নাথপুরে বিএনপির এম এ সাত্তার গ্রুপের ইফতার মাহফিল ও অালোচনা সভা অনুষ্ঠিত




বাজারে ৫২টি খাদ্যপণ্যেই ভেজাল পেল বিএসটিআই

ডেস্ক রিপোর্ট :: দেশে পণ্যের মান নিয়ন্ত্রণকারী কর্তৃপক্ষ বা বিএসটিআই যেসব কোম্পানির পণ্যের মান নিয়ে প্রশ্ন তুলেছে সেটি ভোক্তাদের রীতিমতো দুশ্চিন্তায় ফেলার মতো। রমজান মাস শুরুর আগে খোলা বাজার থেকে ৪০৬টি পণ্যের নমুনা ক্রয় করে বাংলাদেশ স্ট্যান্ডার্ড এন্ড টেস্টিং ইন্সটিটিউট বা বিএসটিআই। খবর বিবিসির।

এরপর সেসব পণ্য বিএসটিআই-এর ল্যাবে পরীক্ষা করে দেখা হয়। এর মধ্যে ৫২টি পণ্য ল্যাব পরীক্ষায় অকৃতকার্য হয়েছে। এসব পণ্যের মধ্যে রয়েছে সরিষার তেল, চিপস, খাবার পানি, নুডলস, হলুদ ও মরিচের গুঁড়া, আয়োডিন যুক্ত লবণ, লাচ্ছা সেমাই, চানাচুর, বিস্কুট এবং ঘি।

বাজারে ক্রেতাদের কাছে সুপরিচিত বেশ কয়েকটি কোম্পানির পণ্যও রয়েছে এসবের মধ্যে। বিএসটিআই এসব পণ্যের মান নিয়ে প্রশ্ন তুললেও সেগুলো এখনো বাজারে বিক্রি হচ্ছে। এসব পণ্য বাজার থেকে সরিয়ে ফেলার বা জব্দ করার কোন উদ্যোগ নেয়নি কর্তৃপক্ষ।

ফলে বিষয়টি নিয়ে শেষ পর্যন্ত হাইকোর্টের দ্বারস্থ হয়েছে কনশাস কনজ্যুমার্স সোসাইটি নামে একটি বেসরকারি ভোক্তা অধিকার সংস্থা। এসব পণ্য জব্দ কিংবা প্রত্যাহারের আদেশ চেয়ে সংগঠনটির পক্ষে আদালতে রিট আবেদন দায়ের করেন সংস্থাটির আইন উপদেষ্টা শিহাব উদ্দিন খান, যিনি হাইকোর্টের একজন আইনজীবী।

তিনি বলেন, যেসব কোম্পানি এসব পণ্য উৎপাদন করেছে, তাদের বিরুদ্ধে শাস্তিমূলক ব্যবস্থা গ্রহণের আবেদন করা হয়েছে। এসব পণ্য বিএসটিআই-এর পরীক্ষায় পুনরায় কৃতকার্য হওয়ার আগ পর্যন্ত এগুলোর উৎপাদন বন্ধ রাখার আবেদন করা হয়েছে বলে শিহাব উদ্দিন খান উল্লেখ করেন।

বাংলাদেশে পণ্যের মান নিয়ে ভোক্তাদের উদ্বেগের শেষ নেই। বিভিন্ন সময় সরকারের বিভিন্ন সংস্থা ভেজাল-বিরোধী অভিযান পরিচালনা করে। কিন্তু তাতেও পরিস্থিতির কোন উন্নতি দেখা যাচ্ছে না।

খাদ্য নিরাপত্তা নিয়ে কাজ করে এমন একটি বেসরকারি সংস্থা খাদ্য অধিকার বাংলাদেশ-এর সমন্বয়ক কানিজ ফাতেমা বলেন, সরকারি সংস্থাগুলো ঢাকার বড় বাজারগুলোতে ভেজাল-বিরোধী অভিযান চালিয়ে থাকে। এনিয়ে রমজান মাসে যতটা তৎপরতা দেখা যায়, সেটি বছরের অন্য কোন সময়ে লক্ষ্য করা যায় না। এছাড়াও এসব অভিযান বড় শহর কেন্দ্রিক।

মিজ ফাতেমা বলেন, ‘রাজধানীকেন্দ্রিক বাজারে তারা যতটা তৎপর, রাজধানীর বাইরে বিভাগীয় শহর, জেলা শহর এবং উপজেলা শহরে এ ধরনের তৎপরতা আমরা দেখি না।’

তিনি বলেন, রমজান যত শেষের দিকে যেতে থাকে, ভেজাল বিরোধী অভিযানও তত স্তিমিত হতে থাকে। বিএসটিআই-এর নিজস্ব ল্যাবরেটরিতে ৫২ টি পণ্য মানের বিচারে অকৃতকার্য হবার পরেও কেন সেগুলো বাজার থেকে সরিয়ে নেবার কোন উদ্যোগ নেয়া হয়নি?

এনিয়ে বিএসটিআই-এর কোন বক্তব্য পাওয়া যায়নি।

এখানে ক্লিক করে শেয়ার করুণ