jagannathpurpotrika-latest news

আজ, , ১৪ই রমযান, ১৪৪০ হিজরী

সংবাদ শিরোনাম :
«» তাক্বওয়া অর্জনের মাধ্যমে রামাদ্বানের সুফল পাওয়া যায়- মাওঃ আহমদ হাসান চৌধুরী «» কাজের মাধ্যমে জনগনের সাথে আমার সু-সম্পর্ক গড়ে উঠবে : মোকাব্বির খান এমপি «» মা’হাদ সিলেট ক্যাম্পাসের ইফতার মাহফিল সম্পন্ন «» রোজার আনন্দ ইফতার «» রমজানের শিক্ষায় অনুপ্রাণিত হয়ে তাকওয়াভিত্তিক জীবন গঠন করতে হবে- মাওঃ রেজাউল করিম জালালী «» অনিয়মের অভিযোগ পেয়ে বিশ্বনাথ-রশিদপুর প্রশস্থকরণ কাজ পরিদর্শনে নুনু মিয়া «» গোয়াইনঘাটে গলায় ফাঁস লাগিয়ে তরুণীর আত্মহত্যা «» সৈয়দপুর যুবকল্যাণ পরিষদের উদ্যােগে ইফতার মাহফিল অনুষ্ঠিত «» জননেত্রী থেকে রাষ্ট্রনায়ক শেখ হাসিনা «» জগন্নাথপুরে বিএনপির এম এ সাত্তার গ্রুপের ইফতার মাহফিল ও অালোচনা সভা অনুষ্ঠিত




ছাতকে বিদ্যুতের ভেল্কিবাজিতে অতিষ্ট জনজীবন

নিজস্ব প্রতিবেদক :: সুনামগঞ্জের ছাতকে বিদ্যুতের ভেল্কিবাজিতে অতিষ্ট হয়ে উঠেছে জনজীবন। লোডশেডিংয়ের নামে প্রতি দুই ঘন্টায় অন্তত ১০ থেকে ১৫ বার বিদ্যৎ আসা-যাওয়া করে।

সকাল-সন্ধ্যা, নামাজ, ইফতার, সেহরীর মত স্পর্শ কাতর সময়ও বিদ্যুৎ কর্তৃপক্ষের কাছে কোন বিবেচ্য বিষয় নয়।

ভুক্তভোগী মানুষের অভিযোগ, বিদ্যুৎ কর্তৃপক্ষের ইচ্ছে-অনিচ্ছেয় চলেছে এখানের বিদ্যুৎ ব্যবস্থা। কয়েক লক্ষ গ্রাহকের দুর্ভোগের বিষয়টি বিদ্যুৎ কর্তৃপক্ষ মোটেই আমলে নিচ্ছেন না।

ঘন-ঘন বিদ্যুৎ আসা-যাওয়ার ঘটনায় উপজেলার পল্লী ও বিদ্যুৎ উন্নয়ন বোর্ডের গ্রাহকদের মধ্যে বিরাজ করছে চরম অসন্তোষ ও উত্তেজনা।

বিদ্যুতের এমন ভেল্কিবাজি একমাস ধরে চলে আসলেও প্রথম রোজা থেকে এর ভয়াবহতা মারাত্মক হারে বৃদ্ধি পায়। সারাদিন ঘন-ঘন বিদ্যৎ বিভ্রাটের ঘটনা ঘটলে ইফতারের আগে ও পরে এর তীব্রতা বেড়ে যেতে দেখা গেছে।

প্রচন্ড গরমে ঘন-ঘন বিদ্যুৎ বিভ্রাটে এখন অতিষ্ট হয়ে উঠেছে শহরবাসী। ঘন-ঘন বিদ্যুৎ বিভ্রাটের বিষয়টি তাৎক্ষনিক জানারও উপায় থাকে না। প্রায় সময়ই প্রকৌশলীসহ বিদ্যুৎ অফিসের কর্মকর্তা-কর্মচারীদের মোবাইল ফোন বন্ধ থাকে। বিদ্যুৎ চলে যাওয়ার কত সময়ের মধ্যে আবার বিদ্যুৎ পাবে এ বিষয়টি জানারও কোন উপায় থাকে না গ্রাহকদের।

ফলে আজ শুক্রবার উপজেলার জাউয়া বাজারে বিক্ষোভ মিছিলের ডাক দিয়েছে ভুক্তভোগী গ্রাহকরা। এর আগে গত ৩ এপ্রিল বিদ্যুৎ উন্নয়ন বোর্ড ছাতকের অফিস ঘেরাও করে প্রকৌশলীকে আটকে রাখে পৌরসভার ১, ২ ও ৩ নং ওয়ার্ডের বাসিন্দারা।

ভুক্তভোগী গ্রাহকদের অভিযোগ, বর্তমানে বিদ্যুৎ কর্তৃপক্ষ গ্রাহক সেবাকে গুরুত্ব না দিয়ে দূর্নীতি ও ঘুষ বানিজ্যকে বেশী প্রাধান্য দিয়ে যাচ্ছেন। ছোট-ছোট মিল-কারখানা, ওয়াশিং মেশিন ও ক্রাসার মিলে অবৈধ সংযোগ দিয়ে কতিপয় কর্মকর্তা-কর্মচারী অবৈধ পন্থায় অর্থ রোজগারে জড়িয়ে পড়েছেন।

এ ব্যাপারে ভুক্তভোগী গ্রাহক গোবিন্দগঞ্জ কেন্দ্রীয় জামে মসজিদের মোতাওয়াল্লী হাফিজ আব্দুল হক জানান, পবিত্র রমজান মাসে বিদ্যুতের এই লুকোচুরি খেলায় এলাকাবাসী অতিষ্ট। শীগ্রই এর সমাধান না হলে অফিস ঘেরাও করে দাবি আদায় করা হবে।

সুনামগঞ্জ জেলা ছাত্রলীগের সাবেক মানবসম্পদ উন্নয়ন সম্পাদক আব্দুল গফফার জানান, সরকার প্রতিবছর কোটি কোটি টাকা বিদ্যুৎ খাতে বরাদ্দ দিচ্ছে কিন্তু কিছু অসাধু কর্মকর্তাদের দূর্নীতির ফলে আজ জনগণের এই ভোগান্তি। ফলে সরকারেরও ভাবমূর্তি নষ্টের হচ্ছে। তিনি জানান আগামী ৪৮ঘন্টার মধ্যে এর সমাধান না হলে গ্রাহকদের সাথে পল্লী বিদ্যুতের ডিজিএমের বিরুদ্ধে সকল গ্রাহকদের নিয়ে অবস্থান নেওয়া হবে।

সুনামগঞ্জ পল্লী বিদ্যুৎ সমিতির পরিচালক সুয়েবুর রহমান জানান, গ্রাহকদের প্রতিনিধি হিসাবে গ্রাহকদের সর্বোচ্চ সেবা নিশ্চিত করাই আমার লক্ষ। বিদ্যুৎ বিভ্রাট রোধে কার্যকরী পদক্ষেপ নেওয়া হচ্ছে। ঝড়বৃষ্টিতে খুটির পাশের গাছ এবং গাছের ডাল লাইনে পড়ে মারাত্মক ঝুকিপূর্ন অবস্থা সৃষ্টি হয়। এর থেকে শর্টসার্কিটে প্রাণহানির মতো ঘটনাও ঘটতে পারে। তাই সতর্ক অবস্থানে থেকে কাজ করতে হয়। তবে এই বিশাল এলাকায় লোকবল সংকটের কারণে অনেক সময় কাজ সম্পন্ন হতে বিলম্ব হয়।

বিদ্যুৎ উন্নয়ন বোর্ড ছাতকের সহকারী প্রকৌশলী আব্দুল্লাহ আল মামুন জানান, প্রাকৃতিক দূর্যোগের কারণে অনেক সময় বিদ্যুৎ সংযোগ দেওয়া সম্ভব হয় না। তবে দ্রুত এই সমস্যা কাটিয়ে উঠার জন্য কাজ চলছে।

এখানে ক্লিক করে শেয়ার করুণ