jagannathpurpotrika-latest news

আজ, , ২৪শে জিলহজ্জ, ১৪৪০ হিজরী

সংবাদ শিরোনাম :
«» সিলেটে আন্দোলন সংগ্রামের বীর সৈনিক আলহাজ্ব সৈয়দ আতাউর রহমানের রোগ মুক্তি কামনায় দোয়া মাহফিল অনুষ্ঠিত «» জনগণের সাথে পুলিশকে আরো ভাল আচরণ করতে হবে- সুনামগঞ্জের পুলিশ সুপার মিজানুর রহমান বিপিএম «» দেশে ফিরেছেন ৩৪ হাজার ৯শ’ ৯২ হাজী «» মাইকিং করে ৪২ মণ ওজনের সেই আলোচিত ষাঁড় ‘টাইগারকে জবাই করে গোস্ত বিক্রি «» বালাগঞ্জে কলেজ ছাত্রলীগ সভাপতির প্রচেষ্টায় শিক্ষার্থীদের ভাড়া কমানোর সিন্ধান্ত «» সিলেট সিটির ২০১৯-২০ অর্থবছরের ৭৮৯ কোটি ৩৮ লাখ ৪৭ হাজার টাকার বাজেট ঘোষণা «» সৌদীআরবে আঞ্জুমানের সমাবেশ অনুষ্ঠিত «» শ্রদ্ধা-ভালোবাসায় অধ্যাপক মোজাফফরকে শেষ বিদায় «» ইউরোপের সবচেয়ে বড় মসজিদ উদ্বোধন রাশিয়ায় «» সুনামগঞ্জে রিপোর্টার্স ইউনিটি’র কমিটি গঠন




জগন্নাথপুরে সংঘর্ষের কারণে ২ বছর ধরে দোকানপাট বন্ধ

মো.শাহজাহান মিয়া :: সুনামগঞ্জের জগন্নাথপুরে সংঘর্ষের কারণে দীর্ঘ ২ বছর ধরে বেশ কয়েকটি দোকানপাট বন্ধ রয়েছে এবং এলাকায় ভীতিকর পরিস্থিতির সৃষ্টি হয়েছে।
জানাগেছে, ২০১৭ সালের ১৬ সেপ্টেম্বর জগন্নাথপুর উপজেলার শ্রীধরপাশা গ্রামে মাদ্রাসার জমি নিলাম নিয়ে গ্রামের আশরাফ আলম কোরেশী ও আবদুল মালিকের লোকজনের মধ্যে সংঘর্ষ ও বন্দুকযুদ্ধের ঘটনায় ১ জন নিহত সহ উভয় পক্ষে শতাধিক লোক আহত হন। এ ঘটনায় উভয় পক্ষের মধ্যে একাধিক মামলা ও পাল্টা মামলা চলছে। এর মধ্যে গত কয়েক মাস আগে জগন্নাথপুর থানা পুলিশের উদ্যোগে বিষয়টি স্থানীয়ভাবে নিস্পত্তি করা হয়। তাতেও কাজ হচ্ছে না। তাদের বিরোধ যেন পিছু ছাড়তে চাইছে না। একের পর এক ঘটে চলেছে নানা অপ্রীতিকর ঘটনা ঘটনা।
১৪ মে মঙ্গলবার সরজমিনে স্থানীয়রা জানান, স্থানীয় মোহাম্মদগঞ্জ বাজারে আশরাফ আলম কোরেশী পক্ষের প্রায় ১০/১২টি দোকানপাট রয়েছে। সংঘর্ষের কারণে দীর্ঘ ২ বছর ধরে তাদের দোকানপাট বন্ধ আছে। এ ব্যাপারে মোহাম্মদগঞ্জ বাজার সেক্রেটারি মাহবুবুল আলম মাসুম বলেন, প্রতিপক্ষের ভয়ে এসব দোকানপাট খোলা যাচ্ছে না। এছাড়া সংঘর্ষের সময় এসব দোকানের মালামাল লুটপাট হয়েছিল। এ সময় আশরাফ আলম কোরেশী পক্ষের মখলিছ মিয়া, আখলাকুল আম্বিয়া ও আনোয়ার হোসেন বলেন, আবদুল মালিক পক্ষের ফয়সল মিয়া ও মুর্শেদের নির্দেশে স্থানীয়ভাবে সিরু মিয়ার নেতৃত্বে লিমন, সিপন, মারুফ সহ একটি সন্ত্রাসী বাহিনীর কারণে আমরা হাট-বাজারে ও রাস্তা-ঘাটে চলাচল করতে পারছি না। এলাকায় ভীতিকর পরিস্থিতির সৃষ্টি করে রেখেছে। তাদের যন্ত্রনায় আমরা জমি চাষাবাদও করতে পারিনা। আমরা রীতিমতো জিম্মি দশায় জীবন-যাপন করছি। তবে মোহাম্মদগঞ্জ বাজারে গিয়ে দেখা যায়, কয়েকটি দোকান বন্ধ থাকলেও বাকি দোকান খোলা রয়েছে। এর মধ্যে কয়েকটি দোকান আশরাফ আলম কোরেশী পক্ষের লোকজন ভাড়া দিয়ে দিয়েছেন। এ ব্যাপারে জানতে চাইলে আবদুল মালিক পক্ষের বাজার সভাপতি রুকন উদ্দিন বলেন, বাজারে কোন সমস্যা নেই। তবে কারো দোকান কেউ না খোললে আমাদের কিছুই করার নেই।

এখানে ক্লিক করে শেয়ার করুণ