jagannathpurpotrika-latest news

আজ, , ২৪শে জিলহজ্জ, ১৪৪০ হিজরী

সংবাদ শিরোনাম :
«» সিলেটে আন্দোলন সংগ্রামের বীর সৈনিক আলহাজ্ব সৈয়দ আতাউর রহমানের রোগ মুক্তি কামনায় দোয়া মাহফিল অনুষ্ঠিত «» জনগণের সাথে পুলিশকে আরো ভাল আচরণ করতে হবে- সুনামগঞ্জের পুলিশ সুপার মিজানুর রহমান বিপিএম «» দেশে ফিরেছেন ৩৪ হাজার ৯শ’ ৯২ হাজী «» মাইকিং করে ৪২ মণ ওজনের সেই আলোচিত ষাঁড় ‘টাইগারকে জবাই করে গোস্ত বিক্রি «» বালাগঞ্জে কলেজ ছাত্রলীগ সভাপতির প্রচেষ্টায় শিক্ষার্থীদের ভাড়া কমানোর সিন্ধান্ত «» সিলেট সিটির ২০১৯-২০ অর্থবছরের ৭৮৯ কোটি ৩৮ লাখ ৪৭ হাজার টাকার বাজেট ঘোষণা «» সৌদীআরবে আঞ্জুমানের সমাবেশ অনুষ্ঠিত «» শ্রদ্ধা-ভালোবাসায় অধ্যাপক মোজাফফরকে শেষ বিদায় «» ইউরোপের সবচেয়ে বড় মসজিদ উদ্বোধন রাশিয়ায় «» সুনামগঞ্জে রিপোর্টার্স ইউনিটি’র কমিটি গঠন




কুরবানীর চামড়া নিয়ে কিছু কথা

।। মুখলিছুর রহমান ।।

 

২০০৮ সালে বেফাক মহাসচিব মাওলানা আবদুল জব্বার রহ. কে বলেছিলাম, বেফাকের তত্তাবধানে বাংলাদেশের কওমী মাদরাসাসমূহের অর্থায়নে একটি টেনারি শিল্প প্রতিষ্ঠান চালু করার জন্য। তিনি গভীর আগ্রহের সাথে আমার পরামর্শ শুনে এব্যাপারে লিখিত প্রস্তাবনা দেয়ার জন্য বলেছিলেন। তখন আমি জকিগঞ্জের প্রাচীনতম কওমী মাদরাসা (প্রতিষ্ঠা সন ১৮৯৩) জামেয়া ইসলামিয়া ছায়ীদিয়া মাইজকান্দীর নির্বাহী মুহতামিমের দায়িত্ব পালন করছিলাম। মরহুম মহাসচিবের কাছে লিখিত প্রস্তাবনার কপি এখন আর আমার কাছে নেই। তবে যতদূর মনে পড়ে; প্রস্তাবনায় আমি যেভাবে টেনারি শিল্প গড়ে তোলা যায়, তার একটি প্রকৃয়া বাতলিয়ে দিয়েছিলাম।

 

সেটা হলোঃ

 

১। বেফাক ভুক্ত প্রত্যেক কওমী মাদরাসাকে নিয়ে ‘কওমী টেনারি (প্রা.) লিমিটেড’ নামে একটি কোম্পানী প্রতিষ্ঠা করা।

 

২। এই কোম্পানির প্রাথমিক মূলধন হবে ১০০ কোটি টাকা। প্রত্যেক কওমী মাদরাসা ন্যুন্যতম ১,০০,০০০/- টাকার শেয়ার ক্রয় করবে এই কোম্পানীর। মাদরাসার পক্ষে মুহতামিম সাহেব কিংবা মাদরাসা কমিটি অনুমোদিত যেকোন একজনের নামে শেয়ার বরাদ্ধ দেয়া হবে।

 

৩। কওমী মাদরাসার শুভাকাঙ্খী এবং টেনারি শিল্পের সাথে সংশ্লিষ্ট স্বল্প সংখ্যক ব্যবসায়ীর কাছে প্রস্তাবিত কোম্পানীর কিছু শেয়ার বিক্রয় করা।

 

৪। শেয়ার হোল্ডারদের মধ্য থেকে ৪৫ জনের (তন্মধ্যে টেনারি ব্যবসায়ী ৫-১০ জন), ডিরেক্টরস বোর্ড এবং ৯-১১ জনের (টেনারি ব্যবসায়ী ৩-৫ জন) একটি ইসি বোর্ড দ্বারা প্রস্তাবিত কোম্পানী পরিচালিত হবে।

 

৫। কোন মাদরাসা যদি নগদ অর্থ বিনিয়োগ করতে অপারগ হয়, তাহলে সমমূল্যের কোরবানীর চামড়া কওমী টেনারিতে বিনিয়োগ করে তার শেয়ার নিশ্চিত করতে পারবে।

 

৬। কওমী টেনারি (প্রা.) লিমিটেড বিশ্ব বাজারের আলোকে প্রতি বছর জিলহজ্জ মাসের শুরুতে চামড়ার মূল্য নির্ধারণ করবে।

 

৭। প্রত্যেক কওমী মাদরাসা নিজ নিজ এলাকা থেকে কোরবানীর চমড়া সংগ্রহ করে কওমী টেনারিতে বিক্রয় করবে।

 

৮। কওমী টেনারি চামড়া প্রকৃয়াজাতকরণ ও দেশের চাহিদা মিটিয়ে বিদেশে চামড়া রপ্তানী করবে।

 

৯। প্রতি বছর কোম্পানীর এজিএমে ঘোষিত লভ্যাংশ শেয়ারহোল্ডারদের একাউন্টে জমা দেয়া হবে।

 

এরকম বেশ কিছু প্রস্তাবনাসহ কোম্পানীর একটি সংক্ষিপ্ত প্রজেক্ট প্রোফাইল আমার ক্ষুদ্র বিবেচনায় তৈরী করে মরহুম মহাসচিব সাহেবের কাছে পাঠিয়েছিলাম। আজ ৭ বছর যাবত কোরবানীর চামড়া নিয়ে কওমী মাদরাসাসমূহের বিড়ম্বনা দেখে সেই পুরনো প্রোফাইলটির কথা বেশ মনে পড়ছে।এবছরতো অনেক কওমী মাদরাসা চামড়ার ন্যুন্যতম মূল্য না পেয়ে ক্ষোব্ধ হয়ে চামড়া পুতে ফেলতে কিংবা নদীতে ফেলে দিতে দেখছি।এক যোগ আগে আমার প্রস্তাবটি যদি আলোর মুখ দেখতো, তাহলে আজ হয়তো ইয়াতীম-গরীব-মিসকীনদের সম্পদ নিয়ে কোন সিন্ডিকেট ছিনিমিনি খেলতে পারতোনা।কওমী টেনারির মতামত নিয়ে দেশের সকল টেনারি শিল্প চালাতে হতো। সরকারও লাভবান হতো। আজ বড় আক্ষেপ লাগছে কোরবানীর চামড়ার এই অবস্থা দেখে। অথচ চামড়াজাত পণ্যের বাজার দর শনৈ শনৈ বাড়ছে। একটি ওয়ালেটের দাম দেড় থেকে দুই হাজার টাকা। এক জোড়া চামড়ার সেন্ডেল দুই থেকে তিন হাজার টাকা। অথচ ৭-৮ বর্গ ফুট চামড়ার মূল্য মাত্র দেড় থেকে দুইশত টাকা।এ মূল্য শুধুমাত্র ভারত ও বাংলাদেশে। বিশ্বের অন্য কোন দেশে চামড়ার মূল্যের এত অধঃগতি নেই।এতে স্পষ্টতঃ প্রমাণিত হয়, এ দুই দেশের টেনারি ব্যবসায়ীরা মিসকীন ঠকানোর মহা পরিকল্পনা নিয়ে মাঠে নেমেছে। এদেরকে বিনা চ্যালেঞ্জে এভাবে কি ছেড়ে দেয়া যায়?এক যোগ আগে চামড়ার মূল্য সন্তোষজনক থাকলেও টেনারি ব্যবসায়ীদের কাছে তখনো কওমী মাদরাসাওয়ালারা জিম্মী ছিলেন।বছরের পর বছর বাকীতে চামড়া বিক্রয় করতে হতো।পাওনা টাকা আদায়ে অনেক মুহতামিম সাহেবানের সেন্ডেল ছিড়াতে হতো। আজ তারা (টেনারি ব্যবসায়ীরা) জোট বেঁধেছে, মিসকীনদের হক আত্মসাতে। এ জোট ভাংতে হবে। মিসকীনদের হক এভাবে নদীতে ভাসিয়ে, মাটিতে পুতে নষ্ট হতে দেয়া যায়না। আকাবিরীনে কওমী পারবেন কি সেই হিম্মত করতে?

 

লেখক: শিক্ষাবিদ, লেখক ও গবেষক।

এখানে ক্লিক করে শেয়ার করুণ