jagannathpurpotrika-latest news

আজ, , ২৩শে সফর, ১৪৪১ হিজরী

সংবাদ শিরোনাম :
«» অবশেষে বিশ্বনাথ পৌরসভা অনুমোদন «» বিশ্বনাথ উপজেলা ‘পৌরসভা’য় উন্নীত হওয়ায় আ’লীগের মিষ্টি বিতরণ «» বিশ্বনাথে জমিয়তের মানববন্ধনে জনতার ঢল «» সিলেটে জমিয়তে সমাবেশে নবী প্রেমিক শহীদদের রক্তের বদলা নেওয়া হবে- শায়খ জিয়া উদ্দিন «» দোয়ারায় মোবাইল কোটে জব্ধকৃত পাথর চুরি করে বিক্রির দায় ২ জন আটক অতপর জরিমানা করে মুক্তি «» বিশ্বনাথে তাওহীদি জনতার বিক্ষোভ ও প্রতিবাদ সভা অনুষ্ঠিত «» জগন্নাথপুরে অাওয়ামীলীগের সম্মেলন সফলের লক্ষে সৈয়দপুরে গণ-মিছিল অনুষ্ঠিত «» ছাতকে এমপি মানিকের মাতার সুস্থতা কামনায় দোয়া মাহফিল অনুষ্ঠিত «» ক্রিকেটারদের ধর্মঘটের ডাক «» হেফাজতে ইসলামের সংবাদ সম্মেলনে আল্লামা জুনায়েদ বাবুনগরীর কর্মসূচি ঘোষণা




জগন্নাথপুরে ২টি সরকারি স্কুলে শিক্ষক সংকট প্রকট ॥ কোন রকমে চলছে পাঠদান

মো.শাহজাহান মিয়া :: সুনামগঞ্জের জগন্নাথপুরে মাধ্যমিক পর্যায়ের ২টি সরকারি স্কুলের শিক্ষক সংকটের কারণে কোন রকম জোড়াতাড়ি দিয়ে চলছে পাঠদান। যুগযুগ ধরে জগন্নাথপুর স্বরুপ চন্দ্র সরকারি উচ্চ বিদ্যালয় ও জগন্নাথপুর সরকারি বালিকা উচ্চ বিদ্যালয়ে এমন অবস্থা বিরাজ করছে। এতে শিক্ষার্থীদের লেখাপড়ার মান নিয়ে শঙ্কিত অভিভাবকরা। প্রতি বছর ভর্তি যুদ্ধে লড়াই করে শুধু মেধাবী শিক্ষার্থীরা এসব সরকারি স্কুলে ভর্তি হন। শুধু শিক্ষক সংকটের কারণে শিক্ষার্থীদের মনে সারাক্ষণ অজানা হতাশা বিরাজ করে। যদিও শিক্ষক সংকট দুরীকরণে পরিকল্পনামন্ত্রী ও স্থানীয় প্রশাসন চেষ্টা করে যাচ্ছেন। তাতেও কাজ হচ্ছে না। তবে খ-কালীন শিক্ষকদের দিয়ে কোন রকমে জোড়াতালি দিয়ে পাঠদান চলছে। এরপরও এসব স্কুল লেখপাড়ার মান ও পরীক্ষার ফলাফলে তাদের অবদান ধরে রেখেছে।
জানাযায়, ১৯২৬ সালে জগন্নাথপুর পৌর শহরের সিলেটী বাসস্ট্যান্ড এলাকায় প্রায় ৫ একর জমির উপর জগন্নাথপুর গ্রামের প্রয়াত শিক্ষানুরাগী ভারত চন্দ্র রায় তাঁর বাবার নামানুসারে স্বরুপ চন্দ্র উচ্চ বিদ্যালয়টি প্রতিষ্ঠা করেন। ১৯৮৭ সালে স্কুলটি জাতীয়করণ হয়। মূলত স্কুলটি জাতীয়করণ হওয়ার পর থেকেই শিক্ষক সংকট লেগেই আছে। শিক্ষক সংকট যেন পিছু ছাড়তে চাইছে না।
এ ব্যাপারে ১১ সেপ্টেম্বর বুধবার জগন্নাথপুর স্বরুপ চন্দ্র সরকারি উচ্চ বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক মোঃ ছায়াদ আলী বলেন, স্কুলের ছাত্র সংখ্যা ৩৩০ জন। শিক্ষক সংখ্যা ১০ হলেও আছেন মাত্র ৪ জন। অনেক চেষ্টা করেও শিক্ষক সংকট দুর হচ্ছে না। যদিও খ-কালীন আরো ৫ জন শিক্ষক সহ ৯ জনে মিলে কোন রকমে জোড়াতালি দিয়ে পাঠদান চলছে। এক প্রশ্নের জবাবে তিনি বলেন, খ-কালীন শিক্ষকদের বেতন ছাত্রদের কাছ থেকে নিয়ে দেয়া হয়। যা উচিত ছিল না। তিনি আরো বলেন, সরকারের পরিকল্পনামন্ত্রী এমএ মান্নান মহোদয় ও স্থানীয় প্রশাসনের সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষ বারবার চেষ্টা করলেও আজ পর্যন্ত আমাদের স্কুলের শিক্ষক সংকট দুর না হওয়ায় রীতিমতো নিরাশ হয়ে গেছি। তবে শিক্ষার মান ও পরীক্ষার কাঙ্খিত ফলাফল আমরা এখনো ধরে রেখেছি।
এদিকে-একই অবস্থা বিরাজ করছে জগন্নাথপুর সরকারি বালিকা উচ্চ বিদ্যালয়ে। এ বিদ্যালয়ের ভারপ্রাপ্ত প্রধান শিক্ষক জয়ন্ত শেখর রায় বলেন, স্কুলের ছাত্রী সংখ্যা ৩২৫ জন। শিক্ষক সংখ্যা ৯ জন হলেও আছেন মাত্র ৪ জন। প্রধান শিক্ষক, সহকারি প্রধান শিক্ষক সহ আরো ৫ জন শিক্ষকের পদ শুন্য আছে। যদিও খ-কালীন শিক্ষক আছেন আরো ৪ জন। তাঁদেরকে নিয়ে কোন রকমে পাঠদান চলছে। বিদ্যালয়টি স্থাপিত হয় ১৯৭৯ সালে। জাতীয়করণ হয় ১৯৮৬ সালে। মূলত স্কুলটি জাতীয়করণ হওয়ার পর থেকেই শিক্ষক সংকট রয়েছে। যুগযুগ ধরে শিক্ষক সংকট যেন পিছু ছাড়তে চাইছে না। এক প্রশ্নের জবাবে তিনি বলেন, লেখাপড়ার মান ও পরীক্ষার ফলাফল হতাশা জনক নয়।
এ ব্যাপারে জগন্নাথপুর উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা মাহফুজুল আলম মাসুম বলেন, সরকারি এ ২টি স্কুলের শিক্ষক সংকটের বিষয়টি আমাদের সংশ্লিষ্ট উর্ধ্বতন কর্তৃপক্ষকে জানানো হয়েছে। তবে সরকার শিক্ষক নিয়োগ দিলে এ ২টি স্কুলের শিক্ষক সংকট সমস্যা সমাধান হবে।

এখানে ক্লিক করে শেয়ার করুণ