jagannathpurpotrika-latest news

আজ, , ১৬ই জিলক্বদ, ১৪৪১ হিজরী

সংবাদ শিরোনাম :
«» সিলেটে মসজিদ কমিটিকে কেন্দ্র করে দুপক্ষের সংঘর্ষে আহত ১০ «» সিলেটে করোনা জয়ী ১৯ পুলিশ সদস্যদের সংবর্ধনা ও সুরক্ষা সামগ্রী প্রদান «» ৭৮০০ বাংলাদেশিসহ ১১লাখ শিক্ষার্থীকে যুক্তরাষ্ট্র ছাড়ার নির্দেশ «» পিয়নের ব্যাংক অ্যাকাউন্টে ৩০ কোটি টাকা! «» শিক্ষার্থীদের বিনামূল্যে ইন্টারনেট দিতে শিক্ষামন্ত্রীর আহ্বান «» দক্ষিণ সুনামগঞ্জে অবৈধ কারেন্ট ও বেল জাল দিয়ে পোনা মাছ নিধন, ইউএনও বরাবর অভিযোগ «» দক্ষিণ সুনামগঞ্জে মুজিব বর্ষ উপলক্ষে বৃক্ষরোপণ কর্মসূচির উদ্বোধন «» দক্ষিণ সুনামগঞ্জে স্বাস্থ্য সুরক্ষা সামগ্রী বিতরণ «» লালাবাজারে বিনামূল্যে হোমিওপ্যাথিক ঔষধ বিতরণ «» গোলাপগঞ্জে ১০জন ভিক্ষুককে ১০০টি হাঁস দিলো উপজেলা প্রশাসন




সিলেটে করোনায় আক্রান্ত সাংবাদিক আবুল, বিশ্বনাথে একটি বাড়িসহ গ্রাম লকডাউন

মো. আবুল কাশেম, বিশ্বনাথ :: সিলেট নগরীর লামাবাজার এলাকায় বসবাসরত বাংলাদেশ অনলাইন সংবাদপত্র সম্পাদক পরিষদ (বনেক) এর সিলেট বিভাগীয় সম্পদক, দৈনিক সবুজ সিলেট পত্রিকার সাবেক স্টাফ রিপোর্টার ও অনলাইন নিউজ পোর্টালের সম্পাদক সাংবাদিক আবুল হোসেন ও তার স্ত্রী করোনায় আক্রান্ত হয়েছেন।
আর এদিকে মিথ্যা গুজবে কান দিয়ে বিশ্বনাথের অলংকারি ইউনিয়নের চেয়ারম্যান রুহেল মিয়া বড়খুরমা গ্রামসহ ওই সাংবাদিকের শশুর বাড়ি লকডাউন করেছেন। কি আজব জাতি আমরা। যে কোন গুজবে সাড়া দিতে থাকি। যেখানে মেয়ে ও তার স্বামী করোনা আক্রান্তের খবর পেয়ে একটি পরিবার চিন্তায় ও কান্নায় না খেয়ে আছে। সেই পরিবাকের শান্তনা না দিয়ে উল্টো তাদের উপর গুজবের নির্যাতন। যারা বাড়ি ও গ্রাম লকডাউন করছেন তারা কতোটুকু সচেতন? তাদের কারো মুখে মাক্স নেই। গুজব ছড়িয়ে একটি পরিবারকে হয়রানি করা ছাড়া আর কিছু না। বিষয়টি জেলা পুলিশ সুপারসহ প্রশাসনের নজরে দেওয়া হয়েছে।
বড়খুরমা গ্রামে মিথ্যা গুজবে কান দিয়ে কবির মিয়ার পরিবারের উপর লকডাউন দিয়ে নির্যাতন করা হচ্ছে। ওই সাংবাদিক দম্পত্তি না কি গত শুক্রবার তাদের শশুর বাড়ি বড় খুরমা আসছেন। গত বুধবার থেকে নগরীতে তাদের বাসা লকডাউন। তাহলে কি ভাবে শুক্রবার তারা সেখানে আসলো? এসকল গুজবে দয়া করে কেউ কান দিবেন না।

 

 

অলংকারি ইউনিয়নের চেয়ারম্যান রুহেল মিয়ার সাথে যোগাযোগ করা হলে তিনি মুঠো ফোনে বলেন আমি ফেসবুকে এবং স্থানীয় লোকদের কাছ থেকে বিষয়টি জেনে ওই বাড়ি এবং গ্রাম লকডাউন করছি। পরে ওই সাংবাদিকের সাথে আলাপ করে জানতে পারলাম তারা গত দুই রমজানে বড়খুরমায় আসছেন। মিথ্যা গুজবের হয়রানি ও লকডাউন থেকে মুক্তি পেতে এবং গুজব ছড়ানোকারীদের বিরুদ্ধে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা গ্রহনের জন্য প্রশাসনের নিকট আশুহস্থক্ষেপ কামনা করছেন ওই পরিবার।

এখানে ক্লিক করে শেয়ার করুণ