jagannathpurpotrika-latest news

আজ, , ১০ই রবিউল-আউয়াল, ১৪৪২ হিজরী

সংবাদ শিরোনাম :
«» আ’লীগ সরকার সব ধর্মের মানুষের অধিকার প্রতিষ্ঠায় সফল «» পরিকল্পনামন্ত্রী এম এ মান্নানের হিজলবাড়ীর মুন্সী আরফান আলী বৈঠকখানা এখন গরীব মানুষের কমিউনিটি সেন্টার «» গোয়াইনঘাটে আল্লামা শফী ও চরমোনাই’র জীবন ও কর্ম শীর্ষক আলোচনা অনুষ্ঠিত «» সুনামগঞ্জের উন্নয়নে বারবার বাঁধা প্রদান করা হচ্ছে: ব্যারিস্টার ইমন «» ওয়াকিটকিতে পুরান ঢাকার ১২ কিলোমিটার নিয়ন্ত্রণ করতেন ইরফান «» দক্ষিণ সুনামগঞ্জে জোরপূর্বক একাধিকবার ধর্ষনে শ্যালিকা এখন ৭ মাসের অন্তঃসত্তা! «» আলহাজ্ব সৈয়দ আতাউর রহমান স্মরণে সৈয়দপুরে শোক সভা ও দোয়া মাহফিল অনুষ্ঠিত «» এলাকার উন্নয়নের জন্য নৌকার বিজয়ের বিকল্প নেই : বিশ্বনাথে এড. নাসির উদ্দিন খান «» ছাতকে সাব-রেজিষ্ট্রারের বিদায়ী সংবর্ধনা «» ফ্রান্সে মহানবী’র (সা:) অবমাননার প্রতিবাদ রাষ্ট্রিয় ভাবে করতে হবে- সিলেটে খেলাফত মজলিস




সিলেটে আইনজীবিদের আদালত বর্জন: ভোগান্তিতে বিচার প্রার্থীরা

ডেস্ক রিপোর্ট :: ধার্য্য তারিখের আগে সহকর্মীর জামিন আবেদন গ্রহণ না করায় আইনজীবিরা সিলেট মহানগর আদালত বর্জন করায় ভোগান্তিতে পড়েছেন বিচার প্রার্থীরা। একই সাথে বাড়ছে বিভিন্ন মামলার জট। বিচার কার্যক্রম স্বাভাবিক না হওয়ায় বিভিন্ন এলাকা থেকে এসে হতাশ হয়ে ফিরছেন বিচার প্রার্থীরা। মঙ্গলবার সিলেট মহানগর দায়রা জজ আদালতের কার্যতালিকা (কজ্ব লিস্ট) সূত্রে জানা গেছে, আইনজীবিরা আদালত বর্জন করায় গত ১৩ সেপ্টেম্বর থেকে মঙ্গলবার পর্যন্ত দুই শতাধিক মামলার চার্জ শুনানী ও সাক্ষ্যগ্রহণসহ বিভিন্ন বিচারিক কার্যক্রম হয়নি। এছাড়াও আদালতের বিভিন্ন কার্যক্রমে স্থবিরতা চলছে।

 

জানা গেছে, গত ১০ সেপ্টেম্বর সকালে সিলেট মহানগর দায়রা জজ আব্দুর রহিমের আদালতে আত্মসমর্পণ করে জামিন আবেদন করেন বিশেষ ক্ষমতা আইনের মামলার আসামি আইনজীবি সালেহ আহমদ। তার মামলার ধার্য তারিখ ছিলো আগামী নভেম্বর মাসে। কিন্তু ১০ সেপ্টেম্বর তিনি আদালতে হাজির হয়ে জামিন চাইলে আদালত নির্ধারিত তারিখে আসতে বলেন। এসময় সালেহ আহমদের পক্ষে আইনজীবি সমিতির নেতৃবৃন্দসহ সিনিয়র আইনজীবিরাও আদালতকে জামিন শুনানির অনুরোধ জানান। এতে আদালত রাজি না হওয়ায় আইনজীবিদের মধ্যে ক্ষোভ দেখা দেয় এবং তারা তাৎক্ষণিক সভা ডাকেন। এ সভা থেকে সিলেট মহানগর দায়রা জজ আদালত বর্জনের সিদ্ধান্ত নেন তারা।

 

জেলা আইনজীবি সমিতির সাবেক সভাপতি অ্যাডভোকেট মোহাম্মদ লালা জানান, পুলিশি হয়রানী থেকে মুক্তির জন্য একজন মানুষ আগাম জামিন আবেদন করতেই পারে। এটা তার আইনগত অধিকার। জামিন দেয়া না দেয়া পরের কথা। আগে আবেদনটি গ্রহণ করা উচিত ছিলো। মানুষের আইনগত অধিকার থেকে বঞ্চিত করায় আমরা তার আদালত বর্জন করেছি। মহানগর দায়রা জজের স্থলে অন্য যে কাউকে স্থলাভিষিক্ত করলে আমরা আদালতে যাবো। তা না হলে আমাদের বর্জন অব্যাহত থাকবে।

 

এ ব্যাপারে সিলেট জেলা আইনজীবি সমিতির সভাপতি এটিএম ফয়েজ বলেন, আইনগতভাবে একজন মানুষ জামিন আবেদন চাইতে পারে। জামিন দেয়া না দেয়া আদালতের এখতিয়ার। কিন্তু দায়রা জজ আব্দুর রহিম আবেদনটি গ্রহন না করে একজন মানুষকে আইনগত অধিকার প্রাপ্যতা থেকে বঞ্চিত করেছেন। তাই তার আদালত বর্জন করা হয়েছে।

 

তিনি বলেন, আমাদের সিদ্ধান্ত মোতাবেক বয়কট অব্যাহত রয়েছে। আগামী বৃহস্পতিবার একটি সিদ্ধান্ত আসতে পারে। আমাদের সাধারণ সভা আছে। সভায় পরবর্তী সিদ্ধান্ত নেওয়া হবে।

এখানে ক্লিক করে শেয়ার করুণ