jagannathpurpotrika-latest news

আজ, , ২৪শে রজব, ১৪৪২ হিজরী

সংবাদ শিরোনাম :
«» দক্ষিণ সুনামগঞ্জে ঐতিহাসিক ৭ই মার্চ উপলক্ষে বীর মুক্তিযোদ্ধা সমাবেশ ও আলোচনা সভা «» বালাগঞ্জে ৬টি ইউনিয়নে বিএনপির আহবায়ক কমিটি ঘোষনা «» উস্তাদদের প্রতি ছাত্রদের শ্রদ্ধা- ভালবাসা,কওমী ছাড়া এমন নজির কোথাও খুজে পাবে নাকো তুমি? «» ঐতিহাসিক ৭মার্চ ও বাংলাদেশ উন্নয়নশীল দেশে উত্তোরনে ছাতক থানায় আনন্দ উদযাপন «» আরাফাত রহমান কোকো স্পোর্টিং ক্লাবের ফুটবল টুর্নামেন্ট সম্পন্ন «» বঙ্গবন্ধুর প্রতিকৃতিতে সিলেট জেলা আ’লীগের শ্রদ্ধা নিবেদন «» ওসমানীনগরে জায়গা দখল নিতে ভাঙচুর ও মারপিট, গ্রেফতার ১ «» ঐতিহাসিক ৭ মার্চ আজ «» সুনামগঞ্জে আওয়ামীলীগের নেতৃত্ব কোনো বিতর্কিত মানুষের হাতে দেয়া যাবেনা- মুহিবুর রহমান মানিক এমপি «» বিশ্বনাথে উৎসব মুখর পরিবেশ ‘বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব ঢাকা ম্যারাথন-২১’ সম্পন্ন




ছাতক পৌর নির্বাচনে ১ টি কেন্দ্রে অনিয়মের অভিযোগ, দু’প্রার্থীর ফল বর্জন

ছাতক প্রতিনিধি :: ছাতক পৌরসভা নির্বাচনে ভোট গণনায় অনিয়মের অভিযোগ এনে ফলাফল বর্জন করেছেন দুইজন কাউন্সিলর প্রার্থী। কেন্দ্রের দায়িত্বে থাকা প্রিজাইডিং অফিসার মঈনুল হোসেন চৌধুরীর বিরুদ্ধে নির্বাচনের ফলাফল পাল্টে দেয়ার অভিযোগ তুলেছেন তারা। ১৬ জানুয়ারীর নির্বাচনে পৌরসভার ৫নং ওয়ার্ডের কাউন্সিলর প্রার্থী (বর্তমান কাউন্সিলর) আছাব মিয়া ও কাউন্সিলর প্রার্থী খায়ের উদ্দিন এ অভিযোগ করেন। পেপারমিল উচ্চ বিদ্যালয় কেন্দ্রের দায়িত্বে থাকা প্রিজাইডিং অফিসার মঈনুল হোসেন চৌধুরী ভোট গ্রহণ শেষে ব্যালটের বান্ডিল কোনো প্রার্থী বা এজেন্টকে দেখান নি। তিনি তার মনগড়াভাবে ব্যালটের বান্ডিল করে ভোট গণনা করে ফলাফল ঘোষণা করেছেন। এক প্রার্থীর প্রাপ্ত ভোট অন্য প্রার্থীর ফলাফলে প্রকাশ করেছেন তিনি। ভোট গ্রহণের আগেরদিনও এই প্রিজাইডিং অফিসারের বিরুদ্ধে নির্বাচন কমিশনে লিখিত অভিযোগ দিয়েছিলেন বর্তমান কাউন্সিলর আছাব মিয়া। এ প্রিজাইডিং অফিসারের বিরুদ্ধে অন্যের দ্বারা প্রভাবিত হওয়ার আরো অভিযোগ রয়েছে। পৌরসভার ৫নং ওয়ার্ডে কাউন্সিলর পদে (বর্তমান কাউন্সিলর) আছাব মিয়া (উটপাখি) প্রতীক, সাবেক কাউন্সিলর ইরাজ মিয়া (পাঞ্জাবী) প্রতীক ও খায়ের উদ্দিন (ডালিম) প্রতীক নিয়ে প্রতিদ্বন্দ্বীতা করেছিলেন। ভোট গণনা শেষে কেন্দ্রের প্রিজাইডিং অফিসার মঈনুল হোসেন চৌধুরীর দেয়া তথ্যমতে এ ওয়ার্ডে আছাব মিয়া উটপাখি প্রতীকে ৩২২ভোট, ইরাজ মিয়া পাঞ্জাবী প্রতীকে ৪৯১ ভোট ও খায়ের উদ্দিন ডালিম প্রতীকে ৪৫৯ ভোট পেয়েছেন। পরে তিনি লিখিতভাবে রেজাল্টশীটে উল্লেখ করেছেন পাঞ্জাবী প্রতীকে ৪৯১ ভোট পেয়েছেন ইরাজ মিয়া। এ রেজাল্টশীট কাউন্সিলর প্রার্থী আছাব মিয়া ও খায়ের উদ্দিন গ্রহণ করেন নি। ভোট গণনার কোনো কাগজে দু’প্রার্থী ও তাদের কোনো এজেন্ট স্বাক্ষর করেন নি। বারবার কেন্দ্রে ভোট পুনঃগণনার দাবি করলেও প্রিজাইডিং অফিসার তা উপেক্ষা করে দু’প্রার্থী ও সমর্থকদের ভয়ভীতি প্রদর্শন করেন। এ নিয়ে ভোটকেন্দ্রে হট্টগোলের সৃষ্টি হয়। এই ভোটকেন্দ্রের ফলাফল বর্জন করেছেন দু’প্রার্থী। কেন্দ্রের প্রিজাইডিং অফিসারের বিরুদ্ধে দূর্নীতি ও অনিয়মের মাধ্যমে ফলাফল পাল্টে দেয়ার অভিযোগ এনে রবিবার জেলা রিটার্নিং কর্মকর্তা বরাবরে একটি লিখিত অভিযোগ দিয়েছেন খায়ের উদ্দিন। এতে তিনি কেন্দ্রে ভোট পুনঃগণনার দাবি জানিয়েছেন। ভোট গণনায় প্রিজাইডিং ও পোলিং অফিসারদের বিরুদ্ধে অনিয়মের অভিযোগ এনে জেলা রিটার্নিং কর্মকর্তা বরাবরে পেপারমিল উচ্চ বিদ্যালয় কেন্দ্রে পুনঃনির্বাচনের আবেদন করেছেন কাউন্সিলর প্রার্থী (বর্তমান কাউন্সিলর) আছাব মিয়া।

এখানে ক্লিক করে শেয়ার করুণ