jagannathpurpotrika-latest news

আজ, , ২৯শে শাবান, ১৪৪২ হিজরী

সংবাদ শিরোনাম :




সিলেটি ভাষার আইরাম, যাইরাম, খাইরাম শব্দাবলীতে সমস্যা কোথায়? ফতোয়া দেয়ার পূর্বে একটু ভাবুন

শাহ মমশাদ আহমদ

 

আইরাম, যাইরাম, খাইরাম প্রভৃতি সিলেটি ভাষার শব্দ, সিলেটের কোন কোন অঞ্চলে আইয়ার, যাইয়ার খাইয়ার ও বলা হয়ে থাকে।

 

অনেকেই আইরাম, যাইরাম, খাইরাম প্রভৃতি শব্দগুলোর মধ্যে রাম নামক হিন্দুদেবতার সংযুক্তি রয়েছে বলে আপত্তি করে থাকেন। তাদের মতামতের প্রতি শ্রদ্ধা রেখেই বলব, তাওহীদের ভালবাসায় শব্দ চয়নে তত্ব তালাশ-গবেষণা খুব প্রশংসনীয় ব্যাপার। তবে আইরাম, যাইরাম খাইরাম প্রভৃতি শব্দের মধ্যে রাম দেবতার নাম সংযুক্ত হওয়ার কোন তত্ব অদ্যাবধি আমার নজরে পড়েনি, আসামে অনেক সিলেটি ভাষাবিদ রয়েছেন,তাদের কাছে জিজ্ঞাসা করে ও এর কোন ভিত্তি পাওয়া যায়নি।

 

আমার ব্যক্তিগত মতামত হচ্ছে, প্রচলিত শব্দগুলোতে রামের অস্থিত্ব খোজা অনুচিত, যুগ যগ ধরে শব্দগুলোর ব্যবহার চলে আসছে,কোন হিন্দু ভাষাপন্ডিতও একথা দাবি করেননি শব্দগুলোতে রাম রয়েছে। বরং আমার মনে হয় সিলেটি ভাষায় হাজারো আরবি শব্দাবলীর ব্যবহার হয়ে আসছে, এশব্দগুলির মধ্যে রাম শব্দটি রুপক অর্থে ব্যবহৃত হয়েছে।

 

আরবি রাম শব্দের অর্থ নিক্ষেপ করা, তীর নিক্ষেপকারীকে রামী বলে, তীর যেভাবে অতিদ্রুত নিক্ষিপ্ত স্থানে পতিত হয়,আসা যাওয়া খাওয়ার অতিদ্রুত সম্পাদন হওয়ার অভিপ্রায় এর দিকে ইঙ্গিত করেই রুপক অর্থে রামের সংযুক্তি করা হয়েছে। এ অর্থে বাংলা ভাষায় দ্রুত চলাকে রামদৌড় বলা হয়।

 

এছাড়া সংস্কৃত ভাষায়, রাম শব্দের মুল অর্থ যে ঘুরে বেড়ায়,যাযাবর, সুন্দর। এ পৃথিবীতে আমরা সকলেই যাযাবর, কেউ চিরস্থায়ী নয়, আসা যাওয়া খাওয়া একজন যাযাবরের মত প্রয়োজন অনুযায়ী করা বাঞ্চনীয় এ অর্থে ও নেয়া যেতে পারে। আইরাম যাইরাম খাইরাম এর মধ্যে রাম শব্দ সুন্দর অর্থে ও নেয়া যেতে পারে। রাম শব্দের আরো অর্থ রয়েছে যেমন বড়ো অর্থে রামদা, রামছাগল।

 

মুসলমানদের মধ্যে প্রচলিত কোন কর্ম- কথাকে যথাসম্ভব বৈধ রাখার চেষ্টা করা উচিত, এজন্যই ফেকাহ শাস্ত্রের ইতিবাচক নীতিমালা হল, اصل الشيء الاباحه
প্রতি জিনিস মুলত মুবাহ(বৈধ), হারাম প্রমানের জন্য দলিলের প্রয়োজন। আইরাম যাইরাম খাইরাম প্রভৃতি শব্দের মধ্যে যতক্ষণ পর্যন্ত রাম দেবতার সংযুক্তি প্রমাণ করা যাবেনা, শব্দগুলোর ব্যবহার নাজায়েজ ফতোয়া দেয়া যাবেনা। শব্দে রামের অস্থিত্ব পেলেই যদি শব্দ বলা নাজায়েজ হয়ে যায়,তাহলেতো অবিরাম বিরামহীন, বা বিরাম চিহ্ন বলা যাবেনা।

 

আরব মুশরিকদের প্রসিদ্ধ দেবতা লাত, আরবি শব্দ اولات উলাত এর মধ্যে লাত পাওয়া যায়, তাহলে তো উলাত বলা যাবেনা।

 

এবিষয়ে অধিকতর গবেষণা ব্যতিরেকে কথা বলা অনুচিত, এবিষয়ে নিসংকোচে সকলের মতামত চাই, আসুন, ফেইসবুক-কে পরনিন্দা আর ট্রলের কেন্দ্র নাকরে জ্ঞানের কেন্দ্র হিসেবে গড়ে তুলি। আল্লাহ তাওফিক দিন। লেখক: মুহাদ্দিস ও কলামিস্ট।

এখানে ক্লিক করে শেয়ার করুণ