jagannathpurpotrika-latest news

আজ, , ১১ই রবিউল-আউয়াল, ১৪৪৩ হিজরী

সংবাদ শিরোনাম :
«» শান্তিগঞ্জে শালিস বৈঠকে দু’পক্ষের সংঘর্ষে আহত ১০ «» বিশ্বনাথে পলাতক আসামি সেবুল মিয়া গ্রেফতার «» উদ্বোধনী দিনেই লড়বে বাংলাদেশ, টি-২০ বিশ্বকাপের পর্দা উঠছে আজ «» শান্তিগঞ্জে তরবিয়তি মজলিসে কোরআনের সমাজ প্রতিষ্ঠায় সবাইকে কাজ করতে হবে- মোহন «» সিলেটে ছাত্রলীগের মানববন্ধন «» নবীগঞ্জে সৌদি ফেরত তরুণী ধর্ষণকারী গ্রেফতার «» কৃষকদের ভর্তুকি দিতে নিষেধ করা হয়েছিল, কিন্তু আমরা শুনিনি: প্রধানমন্ত্রী «» সিলেট বিভাগের ৪৪ ইউনিয়নে বদলে গেল মনোনয়নপত্র বাছাইয়ের তারিখ «» প্রেমিকার আপত্তিকর ভিডিও ফেসবুকে পোস্ট, প্রেমিক গ্রেফতার «» জগন্নাথপুরে গড়গড়ি একতা স্পোর্টিং ক্লাবের শোক সভা ও দোয়া মাহফিল অনুষ্ঠিত




ছাতকে শিশু মিম হত্যাকারীদের গ্রেফতার-শাস্তির দাবিতে প্রতিবাদ

ছাতক প্রতিনিধি :: ছাতকের পল্লীতে চার বছরের শিশু মারিয়া আক্তার মিমকে হত্যা করা হয়েছে। জমিজমা সংক্রান্ত বিরোধের জের ধরে নোয়ারাই ইউনিয়নের কচুদাইড় গ্রামের শিশুকন্যা মারিয়া আক্তার মিমকে খুন করা হয়। সে গ্রামের আনোয়ার হোসেনের কন্যা। ১২ সেপ্টেম্বর কচুদাইর গ্রামে এ ঘটনা ঘটেছে। জানা যায়, ভুমি সংক্রান্ত বিষয় নিয়ে ছাতক উপজেলার নোয়ারাই ইউনিয়নের কচুদাইড় গ্রামের মৃত আব্দুল খালেকের পুত্র সুনাম উদ্দিনের সাথে পার্শ্ববর্তী দোয়ারা উপজেলার লামাসানিয়া গ্রামের মৃত আলী আহমদের পুত্র আব্দুর রশিদের দীর্ঘ দিন ধরে বিরোধ চলে আসছিল। তারা একে অপরের আত্মীয় বলে জানা গেছে। তাদের দ্বন্দ্ব নিয়ে স্থানীয়ভাবে সালিশ বিচার সহ আদালতে মামলাও রয়েছে পক্ষে-বিপক্ষে। ১২ সেপ্টেম্বর সকালে আব্দুর রশিদের পুত্র সাদ্দাম হোসেন বিরোধকৃত ভুমিতে চাষাবাদ করতে যাওয়ার পথে বাঁধা দেয় সুনাম উদ্দিনের স্ত্রী হামিদা বেগম। এ নিয়ে সংঘর্ষের ঘটনায় হামিদা বেগম ও তার কোলে থাকা তার নাতনী শিশু মারিয়া আক্তার মিম আহত হয়। হামিদা বেগমকে স্থানীয়ভাবে চিকিৎসা দেয়া হয়েছে। অপরদিকে গুরুতর আহত মিমকে সিলেট ওসমানী মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে ভর্তি করা হলে ওইদিন দুপুরেই হাসপাতালে চিকিৎসাধীন অবস্থায় মিমের মৃত্যু ঘটে। মিমের মাথায় গুরুতর জখম ছিলো। এ ঘটনায় ১৪ সেপ্টেম্বর মারিয়া আক্তার মিমের দাদা সুনাম উদ্দিন বাদী হয়ে ছাতক থানায় লামাসানিয়া গ্রামের আব্দুর রশিদ, তার পুত্র সাদ্দাম হোসেন, নিজাম উদ্দিন, কচুদাইড় গ্রামের দ্বীন ইসলাম, নূরুল হক, আব্দুল জলিল সহ ১০ জনের বিরুদ্ধে একটি হত্যা মামলা (নং-১৪) দায়ের করেন। ওই দিন মামলার এজাহারভুক্ত আসামী মিজান ফারুক নামের একজনকে গ্রেফতার করে পুলিশ। ঘটনার পর থেকে আসামী আব্দুর রশিদ সহ অন্যান্যরা গাঁ ঢাকা দিয়েছে। সোমবার (২০ সেপ্টেম্বর) মারিয়া আক্তার মিম হত্যাকারীদের গ্রেফতার ও দৃষ্টান্তমূলক শাস্তির দাবিতে কচুদাইড় গ্রামে এক প্রতিবাদ সভা অনুষ্ঠিত হয়েছে। সাবেক ইউপি সদস্য সাদেক মিয়ার সভাপতিত্বে অনুষ্ঠিত প্রতিবাদ সভায় বক্তব্য রাখেন, বর্তমান ইউপি সদস্য আব্দুর রশিদ, বীর মুক্তিযোদ্ধা সুন্দর আলী, আবুল কালাম, নূরুল ইসলাম, শুকুর আলী, আবু শামা, আব্দুল লতিব, আব্দুল হামিদ, তোয়াহিদ মিয়া, সিরাজুল ইসলাম, মাও. জয়নাল আবেদীন, বাচ্চু মিয়া, মনফর আলী প্রমুখ। সভায় বক্তারা বলেন, হত্যা মামলার আসামীরা উশৃঙ্খল, দখলবাজ ও সন্ত্রাসী প্রকৃতির। জমি দখল করতে গিয়ে নির্মমভাবে খুন করেছে শিশু মিমকে। বক্তারা হত্যাকারীদের ফাঁসির দাবি করে বলেন, আসামীপক্ষের এক মহিলা তাদের বাড়িতে লুটপাটের অভিযোগ এনে দোয়ারাবাজার থানায় মিথ্যে অভিযোগ দিয়েছেন। লুটপাটের বিষয়টি গ্রাম বা এলাকার কোনো লোকের জানা নেই। হয়রানির উদ্দ্যেশ্যে এ অভিযোগ দেয়া হয়েছে। নোয়ারাই ইউনিয়নের চেয়ারম্যান দেওয়ান পীর আব্দুল খালিক রাজা জানান, জমি নিয়ে দু’পক্ষের বিরোধ নিষ্পত্তির জন্য বেশ কয়েকবার সালিশ বৈঠক অনুষ্ঠিত হয়েছে। আব্দুর রশিদ ও তার পুত্র সাদ্দাম হোসেনের কারণে বিরোধটি নিষ্পত্তি করা যায়নি। শেষপর্যন্ত সংঘর্ষে জড়িয়ে শিশুকন্যা মিমকে হত্যা করা হলো ছাতক থানার এসআই হাবিবুর রহমান পিপিএম জানান, হত্যা মামলায় এক আসামীকে গ্রেফতার করা হয়েছে। অন্যান্য আসামীদের গ্রেফতারের জন্য চেষ্টা অব্যাহত রয়েছে।

এখানে ক্লিক করে শেয়ার করুণ